সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

Advertisement

অবনতি ১০ জেলায় : বড় বন্যার আশঙ্কা

Advertisement

বৃষ্টি ও ভারত থেকে নেমে আসা পানিতে দেশের সব প্রধান নদনদীর পানি বাড়ছে। তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সুরমা, কুশিয়ারা, যমুনা, তিস্তা ও ধরলা, ব্রহ্মপুত্র, সোমেশ্বরী, কংস, সাংগু, হালদা, মাতামুহুরী ও ফেনী নদীর পানি বিপদসীমা ছুঁইছুঁই।

অব্যাহত বৃষ্টির কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ। আশঙ্কা করা হচ্ছে বড় বন্যার। বন্যাকবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট দেখা দিয়েছে। সবজি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় পানির তোড়ে এক শিশু ভেসে যাওয়ার পর তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এদিকে বন্যাদুর্গত এলাকায় ১৭ হাজার ৫৫০ টন খাবার ও নগদ দুই কোটি ৯৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

গতকাল সচিবালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ সংক্রান্ত সমন্বয় সভায় ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান জানান, বন্যাকবলিত জেলাগুলোতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রত্যেক জেলায় দুই হাজার প্যাকেট উন্নতমানের শুকনা খাবার পাঠানো হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বন্যাকবলিত এলাকায় মেডিকেল টিম কাজ করছে।

মন্ত্রণালয়ের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে প্রত্যেক জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসকরা মাঠপর্যায়ে ইউএনওসহ সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক পরিস্থিতি তদারকি করছেন।

Advertisement


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত