সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

Advertisement

অভিযুক্তদের মধ্যে ১১ জন সরাসরি হত্যা মিশনে অংশ নেয়

Advertisement

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যায় জড়িতরা ক্যাম্পাসে ভয়ের রাজত্ব গড়েছিল। একজনকে মেরে অন্যজনকে শিক্ষা দিতে এবং জুনিয়রদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়াতে দীর্ঘদিন ধরে র‌্যাগিংয়ের নামে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল তারা। যার আচরণ অপছন্দ হতো, ডেকে এনে নানা নির্যাতন করা হতো তাকেই।

আবরারের খুনিরা রাজনৈতিক পরিচয়কে শেল্টার হিসেবে ব্যবহার করে অছাত্রের মতো আচরণ করত। হত্যার মোটিভ কোনো একক কারণ ছিল না। শিবির সন্দেহসহ একাধিক কারণে টার্গেট করা হয়েছিল তাকে।

আবরার হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তদন্তে উঠে আসে এসব তথ্য। দেশ-বিদেশে চাঞ্চল্য তৈরি করা এ হত্যা মামলায় বুয়েট ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সেক্রেটারি মেহেদী হাসান রাসেলসহ ২৫ জনকে আসামি করে গতকাল বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের সংশ্নিষ্ট শাখায় চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। চার্জশিটে অভিযুক্তদের মধ্যে ১১ জন সরাসরি হত্যা মিশনে অংশ নেয়। বাদবাকিরা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে হত্যাকাণ্ডে সহায়তা করে।

অভিযুক্তদের মধ্যে চারজন পলাতক। গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছে বাকিরা। আসামিদের মধ্যে ১৪ জন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে ছিল। অভিযোগপত্রে বুয়েটের সাত শিক্ষক, ১৩ শিক্ষার্থী, পাঁচ কর্মচারীসহ ৩১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

Advertisement


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত