মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

আধুনিক পলাশবাড়ী গড়তে চান আবু বকর প্রধান

ছাত্রলীগ-যুবলীগ হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করছেন তিনি। দশ বছর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পালক করেছেন। এসময় বিএনপি জাামতের রোষানলে পড়েছেন। ২০১৪ সালে জামাতের হামলার শরীরের অঙ্গ হারিয়েছেন। তবুও দলকে ছেড়ে যাননি তিনি। ২০১৬ থেকে পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক হিসেবে সভাপতির দায়িত্ব নেন এই নির্যাতিন নেতা। নবগঠিত পলাশবাড়ী পৌরসভার প্রশাসক হিসেবে অনেক পরিকল্পনাও গুছিয়ে এনেছেন। এখন একবার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ পেলে ৫০ বছরের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে একটি আধুনিক পলাশবাড়ী গড়ে তুলতে চান তিনি।

এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বেশ কয়েকজন প্রার্থী। এদের মধ্যে বছরব্যাপী নিয়মিত গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন পৌর প্রশাসক ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আবু বকর প্রধান। সম্প্রতি নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে দলের মনোনয়নপত্র তোলার পর নিজ এলাকার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় উঠান বৈঠক করছেন তিনি। দলের পক্ষ থেকে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে জয়লাভ করার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছেন প্রায় ৫০ বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত এই বর্ষীয়ান নেতা।

আধুনিক পলাশবাড়ী গঠনের ইশতেহার ঘোষণা করেছেন তিনি। শহরের ডিজিটালাইজেশন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণে পুরো এলাকা সিসিটিভির আওতায় আনা, বাজার ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, ড্রেনেজ সিস্টেম ঠিক করা, তরুণদের খেলাধূলার জন্য মাঠ ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের জন্য মুক্তমঞ্চ স্থাপনসহ জরুরি প্রয়োজনে হেল্পলাইন চালুর ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়াও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, পাঠাগার ও বেকারদের কর্মসংস্থানের জন্য আইটি ট্রেনিং সেন্টার চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে ইশতেহারে।

নৌকার প্রতীক পাওয়ার প্রত্যাশায় এবং আওয়ামী লীগের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা, গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থী নিজে এবং তার সমর্থরা।

এরই ধারাবাহিকতায় গত কয়েকদিন ধরেই দিনব্যাপী পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামে সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় ও দোয়া প্রার্থনা করেছেন এই উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি। এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী এবং সামাজিক, রাজনৈতিক, পেশাজীবীদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে পৌর প্রশাসক ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু বকর প্রধান বলেন, ‘প্রায় ৫০ বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বিএনপি-জামাত সরকারের সময় অনেক হামলা মামলার শিকার হয়েছি। তবুও কখনো মাঠ ছেড়ে যাইনি। সবসময় দলের প্রতি, দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার প্রতি, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতি দায়বদ্ধ ও বিশ্বস্ত থেকে কাজ করেছি। ২০১৪ সালে বিএনপি-জামাতের জ্বালাও-পোড়াও প্রতিরোধ করতে মাঠে তাদের বর্বর হামলায় থেকে শরীরের অঙ্গ পর্যন্ত হারিয়েছি। এই বয়সে এসে এলাকার মানুষের জন্য ভালো কিছু করে যেতে চাই।’

দলীয় মনোনয়ন পেলে জেতার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে এই বর্ষীয়ান নেতা আরও বলেন, ‘ নির্বাচনের জিতলে এলাকায় ব্যাপকহারে উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। ইশতেহারে সেসব বিষয়ে বিস্তারিত বলেছি। পলাশবাড়ীতে একটি আদর্শ পৌরসভা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করবো। যাতে মানুষ আওয়ামী লীগের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকে সেভাবেই কাজ করবো।’

প্রসঙ্গত, আবু বকর প্রধান পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৭২ সালে থানা ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে যোগদান করার মাধ্যমে তার রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়। ১৯৭৩ সালে থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। ১৯৭৭ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ পলাশবাড়ী উপজেলা শাখার প্রচার প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর, ১৯৮২ সালে থানা আওয়ামী লীগ সদস্য এবং ১৯৮৭ সালে থানা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। ১৯৯৬ সালের ২০ ডিসেম্বর দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিলের মাধ্যমে থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে দ্বিতীয় দফায় পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে ২৫ ফেব্রুয়ারি ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলের মাধ্যমে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। পরে ২০২০ সালে মহামান্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে পৌর প্রশাসক হিসাবে দায়িত্ব পান।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত