বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আর্থিক সংকট বাড়ছে

লোকসানের কবলে চারটি, মুনাফার দেখা পেলেও আগের বছরের তুলনায় কমেছে ছয়টির, পরিচালন নগদ প্রবাহ বা ক্যাশ ফ্লো ঋণাত্মক হয়ে পড়েছে ১২টির, সম্পাদের মূল্য কমেছে আটটির এবং একটির সম্পদের মূল্য ঋণাত্মক হয়ে পড়েছে।

এমন চিত্র দেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত অব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা লিজিং কোম্পানিগুলোর। সার্বিকভাবে আমানত, তারল্য, মুনাফা, সম্পদের মূল্য নিয়ে সংকটের মধ্যে রয়েছে দেশের অব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। এ খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর এমন দুরবস্থা সার্বিক আর্থিক খাতকেও সংকটের মধ্যে ফেলে দিয়েছে।

চলতি বছরের প্রথমার্ধের হিসাবে মুনাফা, সম্পদের মূল্য এবং ক্যাশ ফ্লো- এ তিন সূচকের কোনোটিতেই নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি তালিকাভুক্ত মাত্র তিনটি অব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের। জুলাই-জুন হিসাববর্ষ নির্ধারণ থাকায় ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)- কে বিবেচনায় নেয়া হয়নি। পিপলস লিজিং-কে অবসায়নের উদ্যোগ নেয়ায় এটিও হিসাব থেকে বাদ দেয়া হয়েছে।

বাকি ১৮টি প্রতিষ্ঠানের মুনাফা, সম্পদের মূল্য অথবা ক্যাশ ফ্লো- এ তিন সূচকের এক বা একাধিকে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি খারাপ অবস্থায় আছে বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি লিমিটেড (বিআইএফসি)। প্রতিষ্ঠানটি নগদ অর্থ সংকটের পাশাপাশি লোকসানে নিমজ্জিত। এমনকি ঋণাত্মক হয়ে পড়েছে সম্পদের মূল্যও।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

error: Content is protected !!