শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯

ইতিহাস গড়া ফাইনালের চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড

চল্লিশ বছর বাদে লর্ডসের বারান্দায় বিশ্বকাপের ফাইনালিস্ট দল হিসেবে ইংল্যান্ড। এই লর্ডসে ১৯৭৯ বিশ্বকাপে ফাইনাল হেরেছিল ক্রিকেটের জনক দেশটি। চল্লিশ বছরে চার-পাঁচটি ক্রিকেট প্রজন্ম পেরিয়ে গেছে ইংলিশদের। জিওফ বয়কট থেকে ইয়ন মরগানদের কাঁধে চেয়েছে স্বপ্ন ছোঁয়ার ভার। মধ্যে ভিন্ন দেশে মাইক গেটিং থেকে ইয়ান বোথামরা স্বপ্নের কাছে গিয়ে হতাশায় শেষ করেছেন। রোদ পড়া কারুকাজ করা তামাটে লর্ডসের বারান্দায় সেই বিরুদ্ধ ইতিহাস জয় করতে নামেন বাটলার-স্টোকসরা। নক কাঁটা, দম বন্ধ করা ম্যাচ টাই হয়। ফুটবলের সুবাদে বিশ্বকাপ ফাইনালে টাই দেখার ভাগ্য হয়েছে অনেকের। কিন্তু ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনাল প্রথম টাই। আবার সুপার ওভারের দম ফাঁটা উচ্ছ্বাস। তাতেও টাই হয় ম্যাচ। পরে বাউন্ডারি ব্যবধানে এগিয়ে থেকে চ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড। মুকুট ওঠে পোমসদের মাথায়।

প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৪১ রান তোলে নিউজিল্যান্ড। জবাব দিতে নেমে ঠিক ২৪১ রানেই অলআউট হয় ইংলিশরা। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ১৫ রান দরকার ছিল ইংল্যান্ডের। তৃতীয় ও চতুর্থ বল থেকে ১২ রান পেয়ে যায় তারা। শেষ দুই বলে দুই রান নিয়ে রান আউটে দুই উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। নিয়ম অনুযায়ী পরে ব্যাটিং করা দল সুপার ওভারে শুরুতে ব্যাটিং করে। দারুণ ইনিংস খেলা বাটলার এবং স্টোকসকে নামায় ইংল্যান্ড। তারা ট্রেন্ট বোল্টের ওভারে তোলেন ১৫ রান। নিউজিল্যান্ডও তোলে ১৫ রান। তারা ব্যাটিংয়ে নামায় গাপটিল এবং জেমি নিশামকে। আর্চারের বলে নিতে পারে ঠিক ১৫ রান। কিন্তু ম্যাচে ২৪ বাউন্ডারি মারে ইংল্যান্ড। আর কিউইরা মারে ১৯ বাউন্ডারি। তাতেই চ্যাম্পিয়ন হয় ইংলিশরা।

এ নিয়ে লর্ডসে পাঁচটি বিশ্বকাপের ফাইনাল গড়াল। আগের চারটিতে দেখতে হয়েছে ইংল্যান্ডকে। একবার ফাইনালে হারা দল হিসেবে। বাকিগুলো মাঠে কিংবা টিভিতে বসে দর্শক হিসেবে। কিন্তু এবার ভিন দেশি আইরিশ যুবকের হাত ধরে শিরোপা উচিয়ে ধরল ইংল্যান্ড। আগের তিনবার ফাইনালে গিয়ে হারের ইতিহাস রুদ্ধশ্বাস জয়ে রাঙাল। জোফরা আর্চার নামক ভিন্ন দেশি তারাটাকে দলে নেওয়া নিয়েও হয়েছে অনেক কথা। কিন্তু সুপার ওভারে তিনিই তো ম্যাচটা টাইয়ে আটকে রেখে জয়টা তুলে দিলেন ক্রিকেটের জনক দেশটার হাতে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

error: Content is protected !!