সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

উত্তরায় বাসার ভেতর শিশু গৃহকর্মীর লাশ

রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে বৈশাখী আক্তার (১২) নামে এক শিশু গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী। ৩ নম্বর সেক্টরের ১৮ নম্বর সড়কের ৫ নম্বর বাড়ির ছয়তলার একটি ফ্ল্যাটে কাজ করত শিশুটি।

মঙ্গলবার দুপুরে তার লাশের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। শিশুটির স্বজনদের অভিযোগের ভিত্তিতে বাড়িটির সামনের সড়কে বিক্ষোভ শুরু করে এলাকার লোকজন। বিক্ষোভকারীরা বাসার আসবাবপত্র রাস্তায় নামিয়ে আগুনও ধরিয়ে দেয়। সন্ধ্যা ৬টার দিকে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়।

গৃহকর্তা রিফাত ফেরদৌসের বাসায় কাজ করত বৈশাখী। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা তিনি। এক শিশু সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে রিফাত বসবাস করেন ওই ফ্ল্যাটে। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে তাকে।

রিফাত পুলিশের কাছে দাবি করেছেন, ছুটির দিন হওয়ায় তিনি ও তার স্ত্রী গতকাল দেরিতে ঘুম থেকে ওঠেন। তখনও পাশের কক্ষে বৈশাখী ঘুমাচ্ছিল। তাকে বারবার ডাকাডাকি করেও তোলা যায়নি। কক্ষের দরজা ভেতর থেকে লাগানো থাকায় কেউ ভেতরেও যেতে পারছিলেন না। এরপরই তিনি থানায় খবর দেন।

রিফাতের দাবি, গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বৈশাখী। কিন্তু এর কারণ জানাতে পারেননি তিনি।

শিশুটির পরিবার দাবি করেছে, দুই মাস আগে রিফাতের বাসায় কাজ নেয় বৈশাখী। বিভিন্ন সময় মারধর করা হতো তাকে। খুন করে গলায় ফাঁস দেওয়ার নাটক সাজিয়েছেন তারা।

শিশুটির মা জান্নাতুল বেগম বলেন, ‘কয়েক দিন আগে বৈশাখীর দাদি মারা যান। তখন মেয়েকে নিয়ে নওগাঁয় গ্রামের বাড়ি যাই আমি। গত সোমবার ঢাকায় ফিরে সুস্থ-সবল মেয়েকে ওই বাসায় পৌঁছে দিই। দুপুরের পর শুনি, বৈশাখী গলায় ফাঁস দিয়েছে! আমার মেয়ে গলায় ফাঁস দেবে কেন? আমার মেয়েটাকে মেরে ফেলা হয়েছে।’


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত