রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০

এডোনিস ও গ্রিক মিথোলজি

শেখর রায়

ভালোবাসার দেবী এফ্রোডাইট একদিন সহচরী পার্সিফিনির সাথে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন, হঠাৎ একটি গাছের মধ্যে সদ্যজাত সুন্দর একটি স্বাস্থ্যবান শিশুকে দেখতে পেলেন তিনি৷  দেখার পর তিনি শিশুটিকে এখান থেকে তুলে নিলেন ও প্রাণের সখীকে ভার দিলেন শিশুটিকে লালন পালন করার৷ এই শিশুটিই হলেন এডোনিস৷

খুব দ্রুতই এডোনিস সুদর্শন যুবকে পরিণত হলেন৷ এডোনিসের রূপে মোহিত হয়ে গেলেন ভালোবাসার দেবী৷ এদিকে পার্সিফোনি ও এডোনিসকে ভালোবেসে ফেলেছেন৷ তার এফ্রোডাইট বারবার বলা স্বত্ত্বেও এডোনিসকে অর্পণ করতে রাজী হলেন না৷ এবার এফ্রোডাইট সখীর উপর খুব চটে গেলেন ও দেবতাদের রাজা জিউসের কাছে আবেদন জানালেন সঠিক বিচার চেয়ে৷

জিউস বিধান দিলেন-বছরের তিন ভাগের এক ভাগ সময় এডোনিস কাটাবেন এফ্রোডাইটের সাথে, আর এক ভাগ কাটাবেন পার্সিফোনির সাথে ও বাকী এক ভাগ নিজের পছন্দ মাফিক সাথীর সাথে কাটাবেন৷ সেইমত এফ্রোডাইটের সাথে প্রথম একভাগ কাটাতে শুরু করেন৷ এদিকে এফ্রোডাইটের ছিল মোহিনী মায়াবী শক্তি৷ সেই শক্তিবলে সে বছরের পুরো সময়টাই এডোনিসকে নিজের কাছে ধরে রাখলেন৷ পার্সিফোনি এই বিশ্বাসঘাতকতায় খুবই চটে গেল৷ এফ্রোডাইটের অপর সাথী এরিসকে পুরো ব্যাপারটা জানালে সে একটি বিষধর সাপের রূপ ধারণ করে এডোনিসকে দংশন করে এবং এডোনিসের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে ৷ কথিত আছে এডোনিসের রক্ত বিন্দু থেকে এডোনিস ফুলের উৎপত্তি হয়৷

এই ফুলটি উজ্জ্বল হলুদ রং এর মাখন পেয়ালা সদৃশ৷ ইউরোপের নির্দিষ্ট কিছু অঞ্চলে বসন্তকালে জন্মায়৷ ফুলটি একমাত্র সূর্য রশ্মির উপস্থিতিতে পুরোপুরি প্রস্ফুটিত হয়৷ এই হার্বটি ইতস্থত: এখানে-ওখানে জন্মায়, এখনো পর্যন্ত প্ল্যানমাফিক চাষ করা যায়নি৷ চিকিৎসা ক্ষেত্রে এই ফুলটির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে৷ Ranunculaceae ফ্যামিলির অন্তর্গত এই হার্বটির বৈজ্ঞানিক নাম- Adonis vermalis এডোনিসের নামে নামকরণ করা হয়েছে৷ ফুলটি থেকে প্রাপ্ত নিষ্কাশনটি ঔষধি গুনসম্পন্ন হওয়ায় ঔষধ তৈরীতে ব্যবহৃত হয়৷

সাম্প্রতিক চাইনিক রিসার্চ প্রমাণ করেছে, অপর আরেকটি প্রজাতি- Adonis amurensis দেহাভ্যন্তরে রক্ত চলাচলকে বাড়িয়ে দিতে পারে৷ অর্থাৎ এডোনিস আজও অমর হয়ে আছে মানুষের হৃদয় অভ্যন্তরে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত