বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১

ওয়ার্নারের ক্যাচ মিসের মাশুল দিল বাংলাদেশ

ক্রিকেটে প্রচলিত একটি প্রবাদ আছে- ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। বাংলাদেশকে কাল এক ক্যাচ মিসের চড়া মাশুল গুনতে হল।

বিশ্বকাপ মঞ্চে অস্ট্রেলিয়ার মতো দাপুটে প্রতিপক্ষকে চোখ রাঙাতে হাফ চান্সকেও সুবর্ণ সুযোগে পরিণত করতে হয়। সেখানে ডেভিড ওয়ার্নারের আপাত সহজ ক্যাচই ফেলে দিলেন সাব্বির রহমান। ১০ রানে জীবন পাওয়া ওয়ার্নার সুদে-আসলে বুঝিয়ে দিলেন পাওনা। বাংলাদেশের বোলারদের পিটিয়ে ছাতু করে দেড়শ’ ছাড়িয়ে তবেই থামলেন। প্রতিপক্ষের ধারহীন বোলিং ও বাজে ফিল্ডিংয়ের সুবিধা কাজে লাগিয়ে অস্ট্রেলিয়া গড়ল রানের পাহাড়।

বৃহস্পতিবার নটিংহামের ট্রেন্ট ব্রিজে বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ওয়ার্নারের (১৬৬) সেঞ্চুরি এবং অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ (৫৩) ও উসমান খাজার (৮৯) ফিফটিতে পাঁচ উইকেটে অস্ট্রেলিয়া তুলেছে ৩৮১ রান। নিজেদের বিশ্বকাপ ইতিহাসে এটি তাদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

অস্ট্রেলিয়ার দাপুটে ব্যাটিংয়ের সামনে নিয়মিত বোলারদের ব্যর্থতায় সৌম্য সরকারের হাতে বল তুলে দিতে বাধ্য হন অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা। ৫৮ রানে তিন উইকেট নিয়ে সেই সৌম্যই বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল বোলার। দলের সেরা বোলার মোস্তাফিজুর রহমান এক উইকেট নিতে নয় ওভারে গুনেছেন ৬৯ রান। সবচেয়ে খরুচে ছিলেন রুবেল হোসেন ও সাকিব আল হাসান। রুবেল নয় ওভারে ৮৩ ও সাকিব ছয় ওভারে দিয়েছেন ৫০ রান।

এবারের বিশ্বকাপে দলের সফলতম বোলার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের চোটে একাদশে সুযোগ পাওয়া রুবেল আস্থার প্রতিদান দিতে পারলেন না। মোসাদ্দেক হোসেনের চোটে আসরে প্রথমবারের মতো খেলার সুযোগ পাওয়া সাব্বিরও উপহার দিলেন একরাশ হতাশা।

শুরুতে ক্যাচ মিসের পাশাপাশি ৭০ রানের সময় ওয়ার্নারকে রানআউট করার সুযোগও কাজে লাগাতে পারেননি সাব্বির। ওয়ানডে ইতিহাসের সবচেয়ে রানপ্রসবা ভেন্যু ট্রেন্ট ব্রিজ। এ মাঠেই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের বিশ্বরেকর্ড দু’বার ভেঙেছে ইংল্যান্ড। টস জিতে ব্যাটিং নিতে তাই দু’বার ভাবেননি ফিঞ্চ। টস হারার দুঃখটা পঞ্চম ওভারেই ভুলে যেতে পারত বাংলাদেশ।

অস্বস্তি নিয়ে ব্যাট করা ওয়ার্নার মাশরাফির বলে পয়েন্টে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটা হাতে জমাতে পারলেন না সাব্বির। ক্যাচের সঙ্গে ম্যাচের লাগামটাও যেন ফসকে গেল। নতুন জীবন পেয়ে ধীরে ধীরে অস্বস্তি কাটিয়ে আগ্রাসী রূপে ফিরে বাংলাদেশের বোলিং গুঁড়িয়ে দেন ওয়ার্নার। ১৪ চার ও পাঁচ ছক্কায় ১৪৭ বলে ১৬৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে তবেই ফিরেছেন অসি ওপেনার। এবারের আসরে দ্বিতীয় ও ওয়ানডেতে এটি তার ১৬তম সেঞ্চুরি। টপঅর্ডারের দুই সঙ্গী দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন ওয়ার্নারকে। ফিঞ্চকে নিয়ে ১২১ রানের উদ্বোধনী জুটির পর দ্বিতীয় উইকেটে খাজাকে নিয়ে ১৯২ রান যোগ করেন ওয়ার্নার।

৫১ বলে ৫৩ রান করা ফিঞ্চকে ফিরিয়ে ২১তম ওভারে বাংলাদেশকে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন সৌম্য। ৪৫তম ওভারে ওয়ার্নারকে ১৬৬ রানে থামিয়ে সেই সৌম্যই আবার দলকে এনে দেন খানিকটা স্বস্তির উপলক্ষ। এরপর ১০ বলে ৩২ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে রানআউটে কাটা পড়েন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

৭২ বলে ৮৯ রান করা খাজাকে সেঞ্চুরিবঞ্চিত করেন সৌম্য। স্টিভেন স্মিথ থামেন এক রানে। শেষদিকে এভাবে কয়েকটি উইকেট এলেও অস্ট্রেলিয়ার রানবন্যা তাতে থামানো যায়নি। শেষ ১০ ওভারে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা তুলেছে ১৩১ রান। ৪৯ ওভার শেষে বৃষ্টি এসে খেলায় ক্ষণিকের বিরতি দিলেও তাতে কোনো লাভ হয়নি। বৃষ্টি থামার পর শেষ ওভারে আরও ১৩ রান যোগ করে বাংলাদেশের সামনে হিমালয় টপকানোর চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত