বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০

করোনাকালের কবিতা : মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন

করোনার এপিট-ওপিট

হয়তো ইতিহাস হবো
নয়তো ইতিহাসের অনুষঙ্গ।
হয়তোবা গুনবো লাশের সংখ্যা

নয়তো লাশ হবো যত্রতত্র।

হয়তো পুরনো ছন্দে হাসবে পৃথিবী
থেমে যাবে মানুষের গতিবিধি।
অথবা নিঃশব্দে হেরে যাবো, জিতে যাবে
ক্ষুদ্র, অদৃশ্য কিংবা মহাশক্তির কৃতি।

অথবা পৃথিবীজুড়ে জোড়াতালির সভ্যতা
পুরনো বিভৎস অস্ত্রোপচারে
দলিত হবে দুর্বল, দুর্ভেদ্য
হায়েনার হানাহানি কিংবা চুমোচুমি।

নয়তো ডেবিট -ক্রেডিটের ফুঁটো বেয়ে
উহানের ল্যাবরেটরিতে জিইয়ে রাখা জীন
নিমিষেই ধূলিসাৎ কিংবা
আবারো বিচূর্ণ সভ্যতার উদ্বিগ্ন দিন!

অথবা সীমান্ত সীমাবদ্ধতার উর্ধ্বে
মানুষ মানুষের কাঁধে
শ্বাসের পৃথিবীর নিয়তি
অধিপতির অমোঘ মোহে!

কয়েকটা দিন ঘরে থাকো

বন্ধু, যে কয়টা দিন পার, ঘরে থাকো
এ যুদ্ধ অন্যরকম, কেবল ঘরে থাকা।
মাঠে দাবিয়ে বেড়ানো নয়,
রাজপথ কাঁপানো নয়,
শ্লোগানে শ্লোগানে বাতাস ভারি করা নয়।

বন্ধু, এ যুদ্ধ কেবল অশ্রুপাতের।
এ যুদ্ধ কেবল দেখে যাবার।
এ যুদ্ধ নিরবে সয়ে যাবার।
এ যুদ্ধ হিসাবে গড়মিলের।

বন্ধু, বেদুইন বেদুই বলে গিলোনা ঢেঁকুর
জিহাদের তামান্না নিয়ে খেলোনা ছেলেখেলা
পাষন্ডের বুকে আপাতত লাথি বন্ধ করো,
ক্রন্দন করো, আকাশের পানে যত পারো।

বন্ধু, আর কয়েকটা দিন ঘরে থাকো।
এ যুদ্ধ বেঁচে থাকার।
এ যুদ্ধ কাপুরুষের মতো কান্নার।
এ যুদ্ধ কেবল দেখে যাবার।

বন্ধু, বীর পুরুষ সাঁজার ঢের সময় এখনো বাকি
সাহসের বুকে লুকিয়ে আছে প্রিয়জনকে ফাঁকি
কেঁদে চোখ ছলছল করো তোমার আখি।
মহাবিশ্বের আর্তনাদে বাতাস আজ ভারি।

অসুন্দর অবসর

এতো অসুন্দর অবসর!
বিষাদের বিষুবরেখা বরাবর
কে আপন কে পর

বিশ্বাসের হয়েছে আজ দরপতন।

এতো অসুন্দর অবসর!
রাত পোহালেই বেড়ে উঠা
হু হু করে কোভিড নাইন্টিনের
ঊর্ধ্বগামী পরিসর।

এতো অসুন্দর অবসর!
চোখের কোণে ভেসে বেড়ানো
স্বপ্নভঙ্গের তাবৎ আয়োজন আর ব্যথার ধূসর।

এতো অসুন্দর অবসর!
প্রলয়ে ভেঙে যাওয়া শখগুলো
বেহিসেবী আর্তনাদে বিশ্ব
কিংকর্তব্যবিমুঢ় আজ বিশদ।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত