বুধবার, ১২ মে ২০২১

করোনা মহামারিতে দেশে দেখা দিয়েছে রক্তের সংকট

করোনা মহামারিতে দেশে রক্তের সংকট দেখা দিয়েছে। কয়েক দফায় লকডাউন এবং সংক্রমণের আতঙ্কে স্বেচ্ছায় রক্তদাতার সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে হ্রাস পাওয়ায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া কোভিড আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হওয়ার কতদিন পর রক্ত দিতে পারবেন, তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। ফলে জীবন বাঁচাতে যাদের প্লাজমা প্রয়োজন তারা এবং থ্যালাসেমিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্তদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে। আক্রান্ত পরিবারের কাছে এক ব্যাগ রক্তই হয়ে উঠেছে ‘সোনার হরিণ’।

এ অবস্থা নিরসনে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এতে বলা হয়েছে, করোনার টিকা গ্রহীতারা প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর রক্ত দিতে পারবেন। তবে অতি জরুরি প্রয়োজন, রক্তের অভাবে জীবননাশ বা জীবন সংশয়, নেগেটিভ রক্তের গ্রুপ বা দুষ্প্রাপ্য রক্তের গ্রুপের ক্ষেত্রে কোভিড-১৯ টিকা গ্রহীতারা ১৪ দিন পর রক্ত দিতে পারবেন।

দেশে রক্ত পরিসঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে এবং কোভিডের সময় রক্ত দেওয়া-নেওয়ার ক্ষেত্রে সংশয় দূর করাই এ নির্দেশনা জারির উদ্দেশ্য। এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হসপিটাল সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট-এর ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার-ডিপিএম (নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন কর্মসূচি) ডা. আতাউল করিম বলেন, প্রতিবছর আমাদের প্রায় নয় লাখ ব্যাগ রক্তের প্রয়োজন হয়। যার একটি বড় অংশ থ্যালাসেমিয়া রোগীদের জীবন বাঁচাতে নিয়মিত পরিসঞ্চালনের জন্য ব্যবহার হয়ে থাকে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত