সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২

কোনটি ভালো; চাকরি নাকি ব্যবসা?

চাকরি বলতে আপনি কী বোঝেন? আসল কথা হল চাকরি বলে কিছুই নেই। সবই ব্যবসা। আপনি যদি কোন কোম্পানির মালিক হন, তাহলে আপনি বলেন যে আপনি ব্যবসা করছেন। আবার আপনি যদি সেই কোম্পানির আন্ডারে কাজ করেন, তখন আপনি বলেন যে আপনি চাকরি করছেন। তাই তো?

তাহলে চাকরি নাকি ব্যবসা এই প্রশ্নের উত্তর যদি জানতে চান তাহলে সবচে বড় প্রশ্নটা নিজেকে করুন- “আমি কি কারো আন্ডারে কাজ করতে ভালবাসি? নাকি আমি নিজে এককভাবে স্বাধীনভাবে কিছু করতে চাই?”

এই যে সরকারি কোম্পানিগুলো আছে, সেগুলোও তো ব্যবসা। তবে আপনার কাছে তা চাকরি কিন্তু সরকারের কাছে তা ব্যবসা। আপনার ব্যবসা অনেক মানুষকে চাকরি দিতে পারবে- এটা কি আপনি চান? নাকি এটা চান- আপনি অন্যের ব্যবসায় অন্যের আন্ডারে কাজ করবেন?

যা আপনার কাছে চাকরি তা কিন্তু একজনের কাছে ব্যবসা। এমনকি স্কুল কলেজগুলোও এখন ব্যবসাতেই দাঁড়িয়েছে। টিচার আর ডাক্তারদের মহৎ হিসেবে ভাবা হত, আর কয়েক দশক আগে এমনটাই তো ছিল।

এই মহৎ দুটো পেশাও এখন ব্যবসাতে দাঁড়িয়েছে। হ্যাঁ, আপনি বলতেই পারেন যে –আমি তো একজন টিচার, আমি আবার ব্যবসা করলাম কোথায়?

ওই যে বললাম- আপনার চাকরি-অন্যের ব্যবসা। হ্যাঁ, এটা ঠিক যে আপনি চাকরি করছেন। কিন্তু যিনি স্কুলটা খুলেছেন, যিনি স্কুলের মালিক তিনি তো ব্যবসাই করছেন। তিনি প্রতিনিয়ত ভেবে চলেছেন কি করে বেশী ইনকাম করা যায়, কি করলে বেশী বেশী ছাত্র ছাত্রীদের ভর্তি করা যায়।

অনেকে আবার টিচার এর পেশায় থেকে সরকারি চাকরি করে টিউশেন পড়ান। এটা কি ব্যবসা নয়?

ব্যবসা মানে – আপনি স্বাধীনভাবে কিছু কাজ করে ইনকাম করবেন। ব্যবসা মানে আপনি কারো আন্ডারে নয়, আপনার আন্ডারে অনেকেই কাজ করবে।

চাকরি মানে আপনাকে কি কাজ কতক্ষণ করতে হবে তা অন্য কেউ ঠিক করে দেবে। চাকরি মানে আপনি রেগুলার একটা ফিক্সড টাইমে কাজ করে মাসের শেষে একটা ফিক্সড টাকা আনবেন।

এরপর দেখে নিন কারো আন্ডারে কাজ করার সুবিধা আর অসুবিধাগুলো কী।

চাকরির সুবিধাঃ
চাকরি হল অনেকখানি সিকিউর ইনকাম।
প্রতি মাসের শেষে সেলারি নিশ্চিত।
জব টাইম ফিক্সড।
লস এর ইফেক্ট আপনার ওপর সরাসরি পড়বে না।

ব্যবসার সুবিধাঃ
রিস্ক আছে।
প্রতি মাসের শেষে ইনকাম একই হয় না।
কাজের টাইম ফিক্সড নয়।
লস এর ইফেক্ট আপনার ওপরই পড়বে।

চাকরি নাকি ব্যবসা – কি করে বুঝবেন কোনটাতে যোগ দেবেন?

ব্যবসাতে আপনিই বস। আপনার কাজ, আপনার সিদ্ধান্ত, আপনারই চিন্তা। আপনিই মালিক। দায়িত্ব প্রচুর। আপনাকে আপনার প্রতিযোগীদের খোঁজ নিতে হবে।

মার্কেট এর চাহিদা সম্পর্কে জ্ঞান রাখতে হবে। সবার থেকে বেস্ট টা সবসময় দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

ব্যবসাতে আপনার ডেডিকেশেন চাই। একটা স্বতঃস্ফূর্ত ইচ্ছা আসা চাই ভেতর থেকে। আপনি করেই ছাড়বেন- এইরকম দৃঢ় ভাবনা চাই।

ব্যবসাতে লাভ বা ক্ষতি যাই হোক না কেন আপনি মাঝ পথে ছেড়ে চলে আসবেন না- এই প্রতিজ্ঞা করার মতো মানসিকতা চাই।

সন্তান যেমন পরীক্ষায় খারাপ রেজাল্ট করলে আপনি তাকে ছাড়তে পারেন না, বরং সে কি করলে আরও ভালো রেজাল্ট করতে পারে- তার চেষ্টা করে থাকেন ঠিক তেমনি ব্যবসা তে ক্ষতি হলেও আপনার ছেড়ে যাওয়া চলবে না।

ব্যবসাতে ক্ষতি হলে নিজেকে এনালিসিস করতে হবে আর জানতে হবে আপনার কোন ভুলোগুলোর জন্য ক্ষতি হল। তারপরে সেই ভুলগুলো শুধরানোর উপায় খুঁজতে হবে।


© 2022 - Deshbarta Magazine. All Rights Reserved.