রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সুবিধা দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

করোনাভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। রপ্তানির অর্থ প্রত্যাবাসন এবং আমদানি পণ্য দেশে আনার সময়সীমা চার মাস থেকে বাড়িয়ে ছয় মাস করা হচ্ছে। একই সঙ্গে স্বল্পমেয়াদি সাপ্লায়ার্স ও বায়ার্স ক্রেডিট এবং রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের ঋণ পরিশোধের সময়সীমাও বাড়ানো হচ্ছে। এসব বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অন্যদিকে করোনাভাইরাসের প্রভাবে ব্যবসায়িক ক্ষতির কারণে এ বছরের জানুয়ারি থেকে জুন সময়ে কেউ কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হলেও তার ঋণ খেলাপি হিসেবে চিহ্নিত না করার চিন্তা-ভাবনা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এসব উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

সূত্র জানায়, কোনো গ্রাহক জানুয়ারি-জুন সময়ে কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হলে তার ঋণ যেন শ্রেণিকৃত করা না হয়, সে বিষয়ে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হতে পারে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগের এমন প্রস্তাব উচ্চপর্যায়ে বিবেচনাধীন রয়েছে।

বর্তমানে কোনো ঋণ ছয় মাস অপরিশোধিত থাকলে সাব স্ট্যান্ডার্ড, নয় মাস থাকলে নিম্নমান এবং এক বছর থাকলে ক্ষতিজনক মান বিবেচনা করা হয়। এ ছাড়া সাব স্ট্যান্ডার্ডের আগের অবস্থা স্পেশাল মেনশন অ্যাকাউন্ট বা এসএমএ হিসেবে বিবেচিত হয়।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত