সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১

চালের দাম বেড়েছে

বছরের শুরুতেই ঊর্ধ্বমুখী চালের বাজার। এর আগে গত ছয় মাস স্থিতিশীল ছিল নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যের দাম। গত কয়েক দিনে হু হু করে চালের দাম বেড়েছে। অথচ এখন আমন ধানের মৌসুম চলছে। মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ৩ থেকে ৫ টাকা। এই চালের দাম বৃদ্ধিতে ক্রেতারাও ক্ষুব্ধ। একই সময়ে প্যাকেটজাত আটা ও ময়দার দামও কেজিতে ২ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছে কোম্পানিগুলো। বছরের শুরুতে এসব নিত্যপণ্য কেনার ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বেকায়দায় পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

মৌসুমে চালের দাম বৃদ্ধিতে নানা প্রশ্ন তুলেছেন ক্রেতারা। আর এই প্রশ্নের জবাব দিতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন খুচরা বিক্রেতারা। সাধারণ ক্রেতারা বলছেন, যৌক্তিক কোনো কারণ ছাড়াই বাজারে সমানে বাড়ছে চালের দাম। অথচ এভাবে দাম বাড়লেও সরকারের তেমন কোনো পদক্ষেপ নেই। তারা মনে করেন, নতুন সরকার দায়িত্ব নেওয়ার আগেই সুযোগ নিয়েছেন মিল মালিকরা। এই সময়ে সরকারের সঠিক মনিটরিং না থাকায় আমন মৌসুমে চালের দাম তারা যে যেভাবে পারছেন, বাড়িয়ে দিচ্ছেন। ফলে পাইকারি ও খুচরা বাজারে চালের দাম বৃদ্ধির নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

জাতীয় নির্বাচনের আগে থেকে ধানের দাম বেড়েছে। বিশেষ করে সরকারিভাবে চাল ক্রয় করায় বাজারে চালের দাম বাড়ছে। এর ফলে গত তিন দিনে কেজিতে মোটা চাল ৪ টাকা, সরু চাল ৩ টাকা ও সুগন্ধি চাল ৫ টাকা বেড়েছে। রাজধানীর বাজারে গতকাল প্রতি কেজি মোটা চাল স্বর্ণা ৩৮ থেকে ৪০ টাকা, বিআর-২৮ ও লতা ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা, মিনিকেট ৫২ থেকে ৫৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভালো মানের সুগন্ধি চাল ১০০ টাকা ও সাধারণ মানের সুগন্ধি চাল ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া নতুন আমন (বালাম) ৩৭ থেকে বেড়ে ৪০ টাকা হয়েছে। এদিকে কেজিতে ২ টাকা বেড়ে ২ কেজির প্রতি প্যাকেটের নতুন মূল্য আটা ৬৮ টাকা ও ময়দা ৯২ টাকা হয়েছে। এক সপ্তাহ আগেও আগের নির্ধারিত দরের চেয়ে কেজিতে ২-৩ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে। এ হিসাবে আটা-ময়দার দাম কেজিতে প্রায় ৫ টাকা বেড়েছে বলে দাবি করেছেন দোকানিরা।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত