বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

চিঠি মানেই অভিযোগ বক্স : শিরিন শিলা

প্রিয় রুদ্র,
বহুদিন তোমায় লিখি না। কি লিখবো ভেবেও পাই না,কি বা লেখার আছে, কিবা লেখা যায়! অনুভূতি গুলো আজ মৃত্যু প্রায়। তবুও বদ্ধ ডায়েরি খুলে আঙ্গুলের ডগায় সাদা পৃষ্ঠা ছুঁলেই আমার মন খারাপির জমানো আবেগ লিখতে ইচ্ছে হয়। ইচ্ছে হয় আমার অব্যক্ত অনুভূতির নিল খাম ছুঁড়ে দেই শূন্য আকাশের দিকে।

রুদ্র, তুমি কি পড়ে নিতে পার অব্যক্ত আলোড়নে তোলপাড় হওয়া শূন্য হৃদয়ের কথা। রুদ্র আকাশ আর আমার হৃদয়ের শূন্যতার মাঝে বিস্তার ফারাক নেই। তবুও আকাশের শূন্যতা সবাই দেখে আমার হৃদয়ে শূন্যতা বেদনায় নীল হয়ে থাকে লোকচক্ষুর আড়ালে । রুদ্র তুমিও নেই, অভিমানে মলিন হয়ে যাওয়া মুখ দেখবার মতো আর কেউ নেই।

রুদ্র , সত্যি বলতে কি জীবনের সত্য অসত্যের হিসেব নিকেসে, আমি ছেড়ে এসেছি অনেকটা পথ। অনেকটা দূরত্ব বেড়েছে আমাদের। আচ্ছা রুদ্র এতটা দূরে চলে এলে কি আর ফিরে যাওয়া যায়! যায় না,জীবন আর মৃত্যুর বিস্তার ফারাক নিয়েই তো আমাদের বেঁচে থাকা। রুদ্র তুমি বলেছিলে যখন তোমার কথা খুব করে মনে হবে যখন তোমাকে ভীষণ দেখতে ইচ্ছে হবে তখন যেন আমি আকাশ দেখি। প্রখর উতপ্ত গায়ে মেখে গ্রীষ্মের দুপুরে যখন করুণ বিষ্ময়ে তোমার দেখার আকুতি নিয়ে আকাশের দিকে তাকাই তখন শূন্যতা ছাড়া আর কিছুই দেখতে পাই না।

রুদ্র অসীম শুন্যের সাথেই আমাদের শরীরের দূরত্ব বেড়েছে। কিন্তু মনের দূরত্ব বাড়েনি। যে মনেই থাকে তাকে আলাদা করে মনে করতে হয় না।
ইতি তোমার তুতুই


© 2022 - Deshbarta Magazine. All Rights Reserved.