বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯

ছাত্রলীগের কলুষিত রূপ সারাবিশ্ব দেখেছে : ভিপি নুর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরু বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের পাশাপাশি কোনো শিক্ষাঙ্গনে আর কোন ছাত্রকে ক্ষমতাসীন ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের টর্চার সেলে নির্যাতনের শিকার হতে না হয় তা নিশ্চিত করতেই আবরার হত্যার বিচারের দাবিতে আমাদের আন্দোলন অব্যহত রাখতে হবে। আজকে ছাত্রসমাজ ক্যাম্পাসে গণতান্ত্রিক পরিবেশ রক্ষা করা, আবরার হত্যাকাণ্ডের বিচার ও দেশের স্বার্থবিরোধী চুক্তি বাতিলের দাবিগুলোতে আজকে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। আমরা চাই এই প্রতিবাদের মধ্য দিয়ে শিক্ষাঙ্গনগুলো এগিয়ে যাক।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। সংক্ষিপ্ত সমাবেশের পূর্বে আবরার হত্যার প্রতিবাদে ডাকসু’র ভিপি নুরুল হক নূরুর নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল রাজধানীর শাহবাগ চত্বর, মৎস্য ভবন, হাইকোর্ট মোড়, দোয়েল চত্বর হয়ে আবারো রাজু ভাস্কর্যের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিলে বাংলাদেশ ছাত্রফেডারেশনসহ বাম ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডাকসু’র ভিপি বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী চেতনাকে ধারণ করে ছাত্রলীগ করেছি। কিন্তু আমি যখন দেখেছি ছাত্রলীগ করলে সাধারণ ছাত্রদের স্বার্থবিরোধী কাজ করতে হয় তখন আমি ছাত্রলীগ থেকে সরে গেছি। আমাকে বহিষ্কার করা হয়নি। আজকে যে ছাত্রলীগের কলুষিত রূপ বেরিয়ে এসেছে, সেটা সমগ্র জাতি দেখেছে, সারাবিশ্ব দেখেছে।

নূরু বলেন, ইতোমধ্যে আপনারা দেখছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ একটি ঘোষণা দিয়েছে যে মাস্টার্স শেষ হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে হল ছাড়তে হবে। এটি একটি ভালো উদ্যোগ। দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রসমাজ এই দাবি জানিয়ে আসছিল। সুতরাং নিপীড়নের বিরুদ্ধে, নির্যাতনের বিরুদ্ধে, হত্যার বিরুদ্ধে ছাত্রসমাজ রুখে দাঁড়িয়েছে আবরার হত্যার বিচার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত অন্তত সেই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। আপনারা কষ্ট করে হলেও আমাদের প্রতিটা কর্মসূচিতে উপস্থিত থাকবেন। আমরা সংবাদ সম্মেলন করে পরবর্তী কর্মসূচি জানিয়ে দিবো।

তিনি আরো বলেন, আজকে যখন ছাত্র সমাজ জেগে উঠেছে তখন এই ছাত্রসমাজকে থামানোর জন্য লোক দেখানো অনেকে অনেক প্রকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, শোক মিছিল করেছে। কিন্তু তাদের চেতনা তো এটি নয়। আমরা বলেছি, ভবিষ্যতে যেন সাধারণ কোনো শিক্ষার্থী ছাত্রলীগের এই ধরনের নির্যাতনের শিকার না হয় সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীকে ঘোষণা দিতে হবে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত