সোমবার, ২৩ মে ২০২২

জান্নাতুল ফেরদৌস আপিপা’র গুচ্ছ কবিতা

এক।

এই শহরের বিশুদ্ধতার প্রতীক যেমন ফুল,
বিষাদের প্রতীক হিসেবে আমাকে করে নাও!
দিনান্তের কপাল ছুঁয়ে রজনীর অনুপ্রবেশ,
আমার কপালজুড়ে না হয় থাকুক অন্ধকার।
যাদের জন্ম জন্মান্তরের সন্ধি চুপচাপ মেনে যাওয়া,
তারা কখনো প্রতিবাদ শব্দের
এপাশে কিংবা ওপাশে থাকে না।
তাদের ডান হাতে আজীবন অপারগতার স্বীকারোক্তি,
বাম হাতে আত্মগোপনের সাম্যাবস্থা।
সায়াহ্ন কিংবা প্রভাতে বিষাদ যখন জড়িয়ে ধরে,
জন্ম জন্মান্তরের সন্ধি আমার হাত শিকলে বেঁধে রাখে!

দুই।

ফাল্গুনের রং বড্ড রঙিন,
উজ্জ্বল ঝলমলে গোলাপের মতো।
শতাব্দীর হাসিমাখা বেপরোয়া আমি নাহয়
সাদাকালো স্বপ্ন চোখে, একটু সুখী।
বসন্ত বলো আর শরৎ বলো
রাঙাতে জানলে,
শীতের কুয়াশাও রঙীন।
অভিনন্দন তোমায় বসন্ত,
সুখ নিয়ে এসো বসবাসযোগ্য এই ধরনীতে।

তিন।

ঘড়ি বদলায় বছর বদলায়
সাথে আমরাও বদলে যাই,
বদলে যায় মনের ঠিকানা।
বদলে যায় ভালো থাকা,
ভালো রাখার অঙ্গীকার।
অভিভূত নয়নে অবলোকন করে যাই
বদলে যাওয়ার প্রতিযোগীতা।

কবি আপিপা


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত