রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২

ট্রেনে টিকিটের ৩৫ টাকা ফেরত পেতে ৫ বছর কোর্টে লড়াই

২০১৭ সালে এপ্রিলে দিল্লি যাওয়ার জন্য ট্রেনের টিকিট কেটেছিলেন রাজস্থানের কোটার বাসিন্দা সুজিত স্বামী। তবে সেই টিকিট বাতিল করেছিলেন। সেজন্য ১০০ টাকা কেটে নেওয়া হয়েছিল। ফেরত পেয়েছিলেন ৬৬৫ টাকা। যদিও তৎকালীন নিয়ম অনুযায়ী, ৬৫ টাকা কাটা উচিত ছিল। খবর ভারতের হিন্দুস্তান টাইমের।

ট্রেনের টিকিট বাতিল করে দেওয়ায় ৬৫ টাকা কাটার কথা ছিল। কিন্তু ১০০ টাকা কেটে নেওয়া হয়েছিল। অতিরিক্ত অর্থ ফেরত পেতে পাঁচ বছর লড়াই চালিয়েছেন এক ব্যক্তি। অবশেষে হল জয়। অতিরিক্ত ৩৫ টাকা ফেরত পেলেন তিনি। শুধু তাই নয়, টাকা ফেরত পাচ্ছেন প্রায় তিন লাখ যাত্রী। যাঁরা একই অভিজ্ঞতার মুখে পড়েছিলেন।

কী হয়েছিল ঘটনাটি? ২০১৭ সালে এপ্রিলে দিল্লি যাওয়ার জন্য ট্রেনের টিকিট কেটেছিলেন রাজস্থানের কোটার বাসিন্দা সুজিত স্বামী। যিনি পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। তবে সেই টিকিট বাতিল করেছিলেন। সেজন্য ১০০ টাকা কেটে নেওয়া হয়েছিল। ফেরত পেয়েছিলেন ৬৬৫ টাকা। যদিও তৎকালীন নিয়ম অনুযায়ী, ৬৫ টাকা কাটা উচিত ছিল।

কেন অতিরিক্ত টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে তথ্যের অধিকার আইনে (আরটিআই) মামলা করেছিলেন সুজিত। সেই আরটিআইয়ের প্রেক্ষিতে উত্তর রেলওয়ের তরফে জানানো হয়েছিল, ৩৫ টাকা ফেরত পাবেন। সেইমতো ২০১৯ সালে ৩৩ টাকা ফেরত পেয়েছিলেন। গত শুক্রবার বকেয়া দু’টাকাও পেয়ে গিয়েছেন। যিনি পুরো টাকা পিএম কেয়ার্স ফান্ডে দিয়েছেন। সেইসঙ্গে প্রতি বছর ১০০ টাকা দিয়েছেন।

তবে শুধু সুজিত নয়, টাকা ফেরত পাবেন অনেকেই। রেলের তথ্য অনুযায়ী, সুজিতের আরটিআইয়ের সুবাদে প্রায় তিন লাখ যাত্রী অতিরিক্ত টাকা ফেরত পাচ্ছেন। সেজন্য রেলের তরফে ২.৫ কোটি টাকা বরাদ্দও করা হয়েছে বলে সূত্রের খবর।


© 2022 - Deshbarta Magazine. All Rights Reserved.