মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

ধনী বৃদ্ধির হারে তৃতীয় বাংলাদেশ : খতিয়ে দেখার পরামর্শ টিআইবির

বাংলাদেশে অতিধনী মানুষের সংখ্যা দ্রুতই বেড়ে চলছে। বৃদ্ধির এ হার বিশ্বে সর্বোচ্চ। যুক্তরাষ্ট্রের সম্পদ গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়েলথ- এক্সের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বুধবার প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ড আল্ট্রা ওয়েলথ রিপোর্ট ২০১৯’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের দ্রুততম বর্ধনশীল ধনীদের দেশের তালিকায় বাংলাদেশ তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে বাংলাদেশে অতি ধনীর সংখ্যা ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সাধারণত প্রাথমিক বাসস্থান, সংগ্রহে থাকা জিনিসপত্র ও ভোগ্যপণ্যের মতো ব্যক্তিগত সম্পদ বাদ দিয়ে যাদের সর্বোচ্চ ৩ কোটি মার্কিন ডলারের মতো বিনিয়োগ উপযোগী সম্পদ রয়েছে তাদের অতি ধনী ব্যক্তি হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে।

ধনী বৃদ্ধির হারে তৃতীয় বাংলাদেশ

ওয়েলথ-এক্স এর সংজ্ঞায় অতি ধনী বলতে ১০ লাখ থেকে ৩ কোটি মার্কিন ডলারের সম্পদের মালিকদের চিহ্নিত করা হয়েছে। অর্থাৎ বাংলাদেশের হিসেবে যাদের কাছে সাড়ে ৮ কোটি থেকে ২৫০ কোটি টাকা আছে তারাই অতি ধনী।

এ প্রসঙ্গে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা- ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) -এর নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান রেডিও তেহরানকে বলেন, দেশের জিডিপি উন্নয়নের পাশাপাশি অতি ধনীর সংখ্যাবৃদ্ধি এবং ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য বৃদ্ধি ঘটলে সেক্ষেত্রে উন্নয়ন টেকসই নাও হতে পারে। তিনি মনে করেন, নতুন সরকারের উচিত হবে, অতি ধনীদের দ্রুত এ উত্থান স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কারণে হচ্ছে না কী দুর্নীতি, ব্যাংক লোপাট, জালিয়াতি বা সরকারি সম্পদ দখল করে হয়েছে- সে বিষয়গুলো অনুসন্ধান করে দেখা।

ওয়েলথ-এক্সের প্রতিবেদনে ২০১৮ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত ধনী বৃদ্ধির হারে শীর্ষে থাকবে এমন ১০টি দেশের নামের তালিকায় শীর্ষে আছে নাইজেরিয়া। এর পরের অবস্থানে আছে মিসর। তালিকার তৃতীয় স্থানে আছে বাংলাদেশ। এরপর যথাক্রমে ভিয়েতনাম, পোল্যান্ড, চীন, কেনিয়া, ভারত, ফিলিপাইন ও ইউক্রেন।

নতুন এ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৮ সালে বিশ্বে ধনীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ২৪ লাখে। যা ১ দশমিক ৯ শতাংশ হারে বেড়েছে। আর সব উচ্চ সম্পদশালীর মোট সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়ে ৬১ দশমিক ৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

-পার্সটুডে


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত