শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ধার শোধ করতে না পেরে মেয়েকে তুলে দেন ধর্ষকের হাতে

মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে থাকেন মা। তাই বাবার সঙ্গে থাকত ১৩ বছরের শিশুটি। সেই বাবাই যে এমন পাষণ্ড হয়ে উঠবে, তা ভাবতেও পারেনি সে। মুরগি ব্যবসায়ী আবুল হোসেনের কাছ থেকে ধার নেওয়া টাকা শোধ করতে না পেরে তার কুপ্রস্তাবে রাজি হয় বাবা। মেয়েকে তুলে দেয় ওই ব্যবসায়ীর হাতে। আর দিনের পর দিন শিশুটিকে ধর্ষণ করে আসছিল আবুল। পাশবিক এ ঘটনা ঘটেছে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকায়। সম্প্রতি প্রতিবেশী এক নারী ঘটনাটি জানতে পেরে জাতীয় জরুরি সেবা ‘৯৯৯’-এ কল করে সহায়তা চান। অভিযোগ পাওয়ার পর মঙ্গলবারই পাষণ্ড বাবাকে গ্রেপ্তার করে কামরাঙ্গীরচর থানা পুলিশ। ধর্ষককে ধরতে বিভিন্ন স্থানে চলছে অভিযান।

কামরাঙ্গীরচর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) সিকদার মহিতুল আলম বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার মেয়েটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। মেয়েটি তার বাবার সঙ্গে যে বাসায় ভাড়া থাকত, সেই বাড়িওয়ালা বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন। এতে মেয়েটির বাবা ও ব্যবসায়ী আবুল হোসেনকে আসামি করা হয়েছে।’

সংশ্নিষ্টরা জানান, শিশুটির বাবা ওই মুরগি ব্যবসায়ীর দোকানে শ্রমিক হিসেবে কাজ করে। পাশাপাশি রিকশাভ্যানও চালায়। গত বছর একটি প্রয়োজনে সে আবুল হোসেনের কাছ থেকে ছয় হাজার টাকা ধার নেয়। পরে তা আর শোধ করতে পারেনি। এ জন্য প্রায়ই চাপ দিত আবুল। এক পর্যায়ে সে শিশুটির ব্যাপারে কুপ্রস্তাব দেয়। আর এতে রাজি হয় তার বাবা। সে আবুলের চাহিদা অনুযায়ী বেশ কয়েকবার মেয়েকে ওই ব্যবসায়ীর হাতে তুলে দিয়েছে। কখনও কখনও মেয়েটিকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ওই ব্যবসায়ীর কাছে দেওয়া হতো। সর্বশেষ গত ১১ জানুয়ারি সে ধর্ষণের শিকার হয়। এর পর অতিষ্ঠ শিশুটি প্রতিবেশী নারীকে ঘটনাটি জানায়। ওই নারী ৯৯৯-এ ফোন করেন। সেখান থেকে কামরাঙ্গীরচর থানাকে বিষয়টি অবহিত করে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত