বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০

পরাধীনতা

সাকিনা কাইউম

আমি যুদ্ধ দেখিনি,
শুধু দেখছি এর বিভীষিকা।
প্রতিনিয়ত মানুষ মানুষকে যেভাবে নিপীড়িত করছে
শরীরটা আমার শিউরে উঠে!
মনে পড়ে যায় একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের কথা।

মানুষ হয়ে মানুষকে নির্যাতন করে
তারা কি শান্তি পেয়েছিল?
কোন বোধে তারা মানুষকে শকুনের হাতে তুলে দিয়েছিল?

যদি ফিরে যেতে পারতাম!
জানতে চাইতাম, তোমাদের মা, বোন, স্ত্রীর ওপর
এরকম পৈশাচিক অত্যাচার তোমরা কি সইতে পারতে?
নারীর ভূষণ খুলে দেওয়ার আগে
কখনো কি ভেবেছ, তোমরা মানুষ নাকি পশু?

কালের বিবর্তনে তোমাদেরই ঔরসজাত সন্তানেরা
আজ মহাপুরুষ হয়ে গর্বে বুক ফুলিয়ে চলে।
আবরার ও নুসরাত এর মত সাধারণ মানুষকে
তারা তো জীবই মনে করে না।
নির্জীব জড়বস্তু ভেবে,
একের পর একে নির্যাতন করে যায়!

এ যেন এক অদ্ভূত পৃথিবীতে আমরা বেঁচে আছি,
কারো সমস্যা কেউ দেখার নাই!
জলজ্যান্ত মানুষ পুড়িয়ে তারা যেন
চোখে কাল কাপড় পরে থাকে!
বাবার হাত থেকে যখন মেয়েকে
হায়েনারা ছিনিয়ে নিয়ে যায়,
সেসব প্রাণীদের শিকার করতে কেউ এগিয়ে যায় না!

আজকালতো আবার সোশ্যাল মিডিয়াতে
এসব যুদ্ধের কথার ঝড় উঠে।
কেউ বলে ইশ্ , কেউ বলে উফ্,
কেউ বলে আমাদের কিছুই করার নেই!
এরপর, এরপর তারা শীতল হাওয়া বের হাওয়ার
যন্ত্রখানা ছেড়ে নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে যায়।
তারা ভাবে না, আজ যা হল
কাল তো আমার সাথেও হবে!
আজ কি আমরা সুরক্ষিত?
দিন চলে যায়, রাতের পর রাত আসে…
আর আমরা হাত গুটিয়ে অপেক্ষায় থাকি
কবে আমাদের সময় আসবে?


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত