মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

পেঁয়াজের দাম অসাধু পন্থায় দাম বাড়ালে কঠোর শাস্তি

গত দুই বছরের অভিজ্ঞতা বলছে প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাস এলেই পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বাড়ে। এতে ভোক্তাসাধারণ বিপদে পড়েন। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ক্ষোভ-বিক্ষোভ সামাল দিতে নাজেহাল পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। যে কারণে এবার আগেভাগেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

গত কয়েক বছরের তুলনায় মজুত গড়ে তোলা হচ্ছে। এরই মধ্যে টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করা হচ্ছে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। আবার কিছু স্থানীয় বাজার থেকেও সংগ্রহ করা হচ্ছে। এসব পেঁয়াজ বিভিন্ন গুদামে পৌঁছাতে শুরু করেছে। তবে গত কয়েকবারের তুলনায় এবার নির্দিষ্ট পরিমাণ নয়, বরং ভোক্তার প্রয়োজন মতো টিসিবি থেকে ভর্তুকিমূল্যে পেঁয়াজ কিনতে পারবেন। যত দিন প্রয়োজন হবে এভাবে তত দিনই বিক্রয় করা হবে। আমদানি চুক্তিও সেভাবেই করা হয়েছে। প্রয়োজনে দুই থেকে তিন মাস পেঁয়াজ বিক্রয় করা হবে। প্রাথমিকভাবে তিন হাজার টনের আমদানি আদেশ দেওয়া হয়েছে। ১৫ দিন পরপর আমদানির আদেশ দেওয়া হবে।

জানা যায়, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০-৪২ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ৪২-৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৪৫-৫০ টাকা। পাশাপাশি প্রতি কেজি আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩৮-৪০ টাকা, যা সাত দিন আগে ৪০-৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আর এক মাস আগে একই দামে বিক্রি হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাজার তদারকি সংস্থা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, কোনো ধরনের অনিয়ম পেলে আইনের সহায়তা নিচ্ছি। এ বছর পেঁয়াজ নিয়ে কেউ কারসাজি করলে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে। দরকার হলে ব্যবসায়ী লাইসেন্স বাতিল, প্রতিষ্ঠান সিলগালা এমনকি দোষীদের জেলে পাঠানো হবে।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত