রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

প্রশাসনে আসছে বড় পরিবর্তন

নতুন সরকারের আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দক্ষ, শক্তিশালী ও দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এ লক্ষ্যে প্রশাসনের প্রতিটি স্তর নতুন রূপে সাজানোর চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। পরিবর্তন আনা হচ্ছে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের সচিব পর্যায়ে।

জানা যায়, শিগগিরই সরকার সমর্থিত মেধাবী ১৯৮৬ ব্যাচের কয়েকজন কর্মকর্তা ভারপ্রাপ্ত সচিবের দায়িত্ব পাচ্ছেন। একই সঙ্গে বিগত সময়ে প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে যারা দক্ষতা দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং যাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে, এমন কয়েকজন কর্মকর্তাকে ওএসডি ও ডাম্পিং পোস্টে পদায়ন করা হবে।

সূত্র জানিয়েছে, মাঠ প্রশাসনের কয়েকটি পদেও আসছে পরিবর্তন। প্রশাসনের মধ্যম স্তরের পদোন্নতির চিন্তাভাবনাও রয়েছে সরকারের।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতার পর মন্ত্রিসভায় ব্যাপক চমক দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারের মন্ত্রিসভায় বেশিরভাগ ক্লিন ইমেজের নেতা স্থান পেয়েছেন। তাদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কাজ করতে প্রশাসনেও ক্লিন ইমেজের মেধাবী কর্মকর্তাদের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী বড় মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো পরিদর্শন শুরু করেছেন। গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। এ অবস্থায় দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়তে ও আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে নতুন সাজে সাজছে প্রশাসন। এ ছাড়া দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনে জেঁকে বসা সিন্ডিকেটমুক্ত করার পরিকল্পনাও রয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, গত ১০ বছর প্রশাসন একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। মাঝেমধ্যে সিন্ডিকেটের সদস্য পরিবর্তন হলেও কাঠামো ও কর্তৃত্ব ঠিকই থাকছে। তাদের পছন্দসই লোকদের দেওয়া হয়েছে ভালো পদায়ন ও পদোন্নতি। এ ক্ষেত্রে মেধা ও জ্যেষ্ঠতার কোনো বালাই ছিল না।

দেখা গেছে, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন এমন কর্মকর্তা কোনো মন্ত্রণালয়ের সচিব হলে তিনি ওই মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসিয়েছেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছেন এমন আরেক কর্মকর্তাকে। এখন সিন্ডিকেটমুক্ত প্রশাসন গড়ার লক্ষ্যেই এগোচ্ছে সরকার। আর এজন্য আসছে ব্যাপক রদবদল।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত