শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

প্রেসক্রিপশন ছাড়া প্রতিদিন বিক্রি ১০ লাখ অ্যান্টিবায়োটিক

দেশে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার যেন বেড়েই চলেছে। জ্বর হলেই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করছেন ৫৪ শতাংশ রোগী। শুধু জ্বর নয় অন্য রোগের চিকিৎসার বেলায়ও প্রয়োজন ছাড়াই যথেচ্ছ ব্যবহার হচ্ছে অ্যান্টিবায়েটিক। এ অনিয়ন্ত্রিত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ফলে মানুষের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স বাড়ছে।

এতে মানবদেহে পরবর্তীতে আর এন্টিবায়োটিক ওষুধ ঠিকমতো কাজ করছে না। ফলে সারছে না রোগব্যাধিও। চিকিৎসকরা জানান, দেশে বর্তমানে প্রতিবছর অন্তত সাড়ে ৩৬ কোটি পিস অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি হয়। যা চরম উদ্বেগের বিষয়। এ অবস্থায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে জনসচেতনতা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে প্রতিবছর ১৮ থেকে ২৪ নভেম্বর ‘অ্যান্টিবায়োটিক সচেতনতা সপ্তাহ’ পালন করা হয়। কর্মসূচির এবারের প্রতিপাদ্য ‘আমাদের ওপর নির্ভর করবে অ্যান্টিবায়োটিকের ভবিষ্যৎ’।

বিষয়টি নিয়ে গত রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ এএমআর রেসপন্স এলায়েন্স (বারা) এক বৈজ্ঞানিক সেমিনারের আয়োজন করে। এতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. সায়েদুর রহমান একটি গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। বাংলাদেশে প্রেসক্রিশন ছাড়া এন্টিমাইক্রোবিয়ালের ব্যবহার সম্পর্কে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে ২ লাখ ৩০ হাজার ফার্মেসি রয়েছে। 


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত