সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

বন্যাকবলিত অঞ্চলে দুর্ভোগ

সপ্তাহজুড়ে টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে দেশের প্রধান নদ-নদীর পানি বেড়ে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা, ধরলা, যমুনা ও ব্র্রহ্মপুত্র নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে। বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে দেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। পানিবন্দি হয়ে কয়েক লাখ মানুষ অমানবিক জীবনযাপন করছেন। খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট বন্যার্তদের দুর্ভোগ বাড়াচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, শেরপুর, বগুড়া, সুনামগঞ্জে ও নেত্রকোনা অঞ্চলে আরও নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও খুবই অপ্রতুল বলে দাবি করছেন বন্যাদুর্গতরা। অনেক এলাকায় এখনও ত্রাণ পৌঁছেনি। ফসলের ব্যাপক ক্ষতি ও ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। আমনের বীজতলা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানির প্রবল চাপে তিস্তা ব্যারাজের বাইপাস ফ্ল্যাট-গেট খুলে দেওয়া হয়েছে।

টানা বর্ষণে রোববার কপবাজারের চকরিয়ায় পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। পার্বত্য বান্দরবানের লামায় পাহাড় ধসের ঘটনায় নুরহাজান বেগম নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় যুগেন্দ্র চাকমা নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন। রোববার পর্যন্ত স্বাভাবিক হয়নি বান্দরবানের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ।

রোববার পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, তিস্তা-যমুনা-বহ্মপুত্র ও সুরমার পানি ২৫টি পয়েন্টে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পাউবোর ৯৩টি পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের মধ্যে ৭৩টি পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। আর ১৮টি পয়েন্টে পানি হ্রাস পাচ্ছে। ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। বাঁধ ভেঙে নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম।

পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর ও ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, তৎসংলগ্ন ভারতের আসাম ও মেঘালয় প্রদেশে ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল সংলগ্ন বিহার ও নেপালে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও গঙ্গা-পদ্মা অববাহিকায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। আগামী ৭২ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমা অতিক্রম করবে। এতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হবে সিলেট ও রংপুর, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া ও সিরাজগঞ্জে। তবে চট্টগ্রাম ও বান্দরবানে পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত