শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯

বর্ষা মৌসুমে অধিক ঝুঁকিতে পাহাড়ী অঞ্চল

জেসমিন সুরভী, বান্দরবান থেকে

পাহাড় প্রকৃতির সৌন্দর্য বর্ধন ও ভারসাম্য ঠিক রাখলেও বর্ষাকালে এই পাহাড় মানুষের জীবনযাত্রার উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।দীর্ঘ সময় ধরে বৃষ্টিপাতের ফলে পাহাড় ধ্বসের সম্ভাবনা দ্বিগুন বেড়ে যায়।যা পাহাড়ি অঞ্চলের জনসাধারণের জন্য খুবই ভয়ংকর।

বর্ষা মৌসুমে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলার তিন অঞ্চলের মানুষ।
পাহাড় বড় হওয়ার সুবাদে অধিকাংশ মানুষ এই ঝুঁকির বাইরে নয়। আমাদের বান্দরবান জেলাতেও পাহাড় ধসের সম্ভাবনা বেশি থাকে। একটু নিচু এলাকাগুলোতে বন্যাও হয়।

পাহাড়ের পাদদেশে বসবাস করা মানুষগুলো পড়ে জীবন ঝুঁকিতে। যদিও প্রশাসন এরকম ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাতে তাদের থাকতে নিষেধ করে তবুও তারা থাকতে বাধ্য। কারণ বসবাস করার জন্য এই মানুষগুলোর জন্য উপযুক্ত জায়গা নেই।

অতি বৃষ্টি হলেই বান্দরবান জেলার সাথে অন্যান্য উপজেলাগুলোর সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। জনজীবন মারাত্মকভাবে বিপর্যস্ত হয়। পাহাড়ের মানুষগুলোর ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

তাছাড়া নদীর চরে যারা চাষ করে সেসব কৃষকদেরও ফসলেরও ক্ষতি হয়।
নদীর আশেপাশের এলাকাগুলো প্লাবিত হয়। সড়কের উপর পাহাড় ও গাছ ভেঙে পড়ে থাকে। বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে আমাদের জীবন।

শুকনো মৌসুমে প্রশাসনের চোখের আড়ালে প্রচুর পরিমাণে বৃক্ষ কেটে ফেলে অসাধু ব্যবসায়ীগণ।পাহাড় কেটে বসতবাড়ি স্থাপন ও পাহাড় ঝুঁকিতে পড়ে এমন সব কাজ করে।যার কারণে বর্ষা আসলেই শুধু পাহাড় ধ্বস নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়।

পাহাড় ধস আর বন্যায় শত শত মানুষ হয়ে পড়ে আশ্রয়হীন। তবুও আমাদের পাহাড় সুন্দর, আমাদের পাহাড়ি জীবন সুন্দর। আমরা চাই এই সুন্দর পাহাড়ে ধস বন্ধ হোক, বন্ধ হোক অবৈধভাবে পাহাড় কাটা।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

error: Content is protected !!