মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

ব্ল্যাক বক্স থিয়েটারের আদলে তৈরি হল বাংলা ছবি ‘মুখোমুখি’

সুমন সাধু

কমলেশ্বর মুখার্জী অনেকবছর আগে একটি গল্প লিখেছিলেন। বছর দুয়েক আগে সেই গল্প নিয়ে ‘অবয়ব’ নামে একটি নাটকও নির্মিত হয়। গল্পটির মূলে দাঁড়িয়ে আছে বর্তমান যুব সমাজ। কোনটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ- কেরিয়ার, বড়ো হয়ে ওঠা নাকি প্রেম-ভালোবাসা! যুব সমাজের প্রতিনিধিরাও এই পরিস্থিতিতে হিমশিম খাচ্ছেন।

‘মুখোমুখি’ ছবির অন্যতম অভিনেতা সাহেব ভট্টাচার্য আমাদের জানান, “একটি সিনেমাকে পুরোপুরি থিয়েটারের আঙ্গিক দেওয়া হয়েছে। ব্ল্যাক বক্স থিয়েটারের আদলে তৈরি করা এমন একটি ছবি সম্ভবত ভারতবর্ষে এই প্রথম। আমার চরিত্রের নাম শৌনক। সে একজন ইন্সপায়ারিং মিউজিশিয়ান। সে গান লেখে, গান গায়। কিন্তু যে গান তথাকথিত সমাজ শুনতে চায়, সেগুলো তার ভালোলাগে না। ও ইউনিক কিছু একটা তৈরি করতে চায়। এই দোটানার মধ্যেই শৌনককে থাকতে হয়। সমাজ নাকি স্বয়ং সে- কাকে বেছে নেবে। পুরো চরিত্রটার মধ্যেই একটা সংশয় আছে। তার এই অবস্থার পাশে গিয়ে দাঁড়ায় অনসূয়া।”

সময় এবং সমাজের টানাপোড়েনে ভুগছেন এখনকার নাগরিক। কোনটা ঠিক আর কোনটা ঠিক নয়, সেই সিদ্ধান্ত নিতে চরম সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন। কমলেশ্বর মুখার্জী শৌনকের সংলাপে লিখেছেন “তোমরা শিল্পের ঠিকাদারি নিয়েছ। সভ্যতার সংজ্ঞা দিচ্ছ। কী সাহস তোমাদের! তোমরা কে?” আসলে নিজেকে আয়নার সামনে রেখে নিজেকেই যাচাই করে নেওয়ার গল্প ‘মুখোমুখি’। ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্র ঈশা। একজন জনপ্রিয় লেখিকা। কিন্তু সেই ঈশা এখন রাইটার্স ব্লকে ভুগছেন। সে চায় গল্পের আঙ্গিক-গতি সবকিছু ওলটপালট করে দিতে।

এই ছবিতে থিয়েটারের মতো একটাই সেট ব্যবহার করা হয়েছে। আউটডোর শুট প্রায় নেই। ‘মুখোমুখি’ একটি শিল্প, প্রেম আর মানবিকতার দ্বন্দ্ব নিয়ে তৈরি। ছবিতে প্রধান দুই চরিত্রে অভিনয় করছেন যিশু সেনগুপ্ত এবং পায়েল সরকার। শৌনক ও অনসূয়ার কিশোরবেলার চরিত্রে অভিনয় করছেন সাহেব ভট্টাচার্য এবং দর্শনা বণিক। এছাড়াও দুটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যাবে রজতাভ দত্ত এবং গার্গী রায়চৌধুরীকে। দুটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন অঞ্জন দত্ত এবং উষসী চক্রবর্তী। এই ছবির গল্প এবং চিত্রনাট্য লিখেছেন কমলেশ্বর নিজেই। সঙ্গীত পরিচালনা করছেন দেবজ্যোতি মিশ্র। ফ্রেন্ডস কমিউনিকেশনসের প্রযোজনায় এই ছবি মুক্তি পাবে ১ ফেব্রুয়ারি।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত