মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

Advertisement

রংপুর এলপিজি অটোগ্যাস স্টেশন এন্ড কনভার্সন সেন্টার উদ্বোধন

Advertisement

সিয়াম হোসেন

রংপুর সিটি কর্পোরেশন এর মাননীয় মেয়র মোঃ মোস্তাফিজার রহমান (মোস্তফা) এর উপস্থিতিতে উত্তম জিরো পয়েন্ট (যুব উন্নয়ন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বিপরীতে), হাজীরহাট এ রংপুর এলপিজি অটোগ্যাস স্টেশন এন্ড কনভার্সন সেন্টার এর শুভ উদ্বোধন সম্পন্ন হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর এ সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এডিশনাল এসপি আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন; জেলা ও দায়রা জজ আদালত, রংপুর এর সহকারি জজ আবুহেনা সিদ্দিকী; সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর বৃন্দ- মোসাঃ নাছিমা আক্তার (সংরক্ষিত ওয়ার্ড-১), মোঃ রফিকুল ইসলাম (১নং ওয়ার্ড), মোঃ আবুল কালাম আজাদ (২নং ওয়ার্ড) এবং মোঃ ফজলে এলাহী ফুলু (১৩নং ওয়ার্ড); রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হাজিরহাট থানার সম্মানিত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান; ১নং ওয়ার্ড মহানগর কৃষকলীগের সম্মানিত সভাপতি হাজী মোহা. মিজান শেখ; স্পেশাল আর্মড ফোর্সেস, রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আশরাফুল আলম (পলাশ) সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মেয়র বলেন, পরিবেশ বান্ধব এলপিজি গ্যাস শহরের বায়ু দূষণ রোধে সহায়তা করবে। তিনি স্টেশনটির সার্বিক উন্নতি ও মঙ্গল কামনা করেন।

স্টেশনটির চেয়ারম্যান, তরুণ উদ্যোক্তা ইঞ্জি. মো. ইকবাল হোসাইন বলেন অকটেন চালিত ইঞ্জিনকেই এলপিজি তে রূপান্তরিত করা যায় এবং এই কনভার্সনের কাজ তাদের অটোগ্যাস স্টেশনেই করা হয়।

তিনি আরো বলেন, তারা এই এলপিজি আমদানি করেন সেনা কল্যাণ সংস্থার কাছে তাই এই এলপিজির গুণগত মান খুবই ভালো এবং উন্নত মেশিনের মাধ্যমে এই গ্যাস সরবরাহ করা হয় বলে মাপে সঠিক থাকে। তিনি আরও জানান এই স্টেশনে গাড়ি সমূহের ফ্রি টিউনিং এবং ফ্রী ওয়াশিং এর ব্যবস্থা আছে।

অটোগ্যাস স্টেশনটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ঈসা রুহুল্লাহ (নাদিম) বলেন, সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমে এবং মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে এই করোনা কালীন বাধা অতিক্রম করে স্টেশনটি স্থাপন এবং তা উদ্বোধন করতে সক্ষম হয়েছি।

তরুণ এই উদ্যোক্তা জানান, তাদের স্টেশনে খুব স্বল্পমূল্যে ট্রেডিশনাল সিস্টেম এবং কুয়েন্সিয়াল সিস্টেম (কম্পিউটারাইজড সফটওয়্যার এর মাধ্যমে) দুইভাবেই কনভার্সন করা হয় এবং এক্ষেত্রে দক্ষ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত মেকানিক দ্বারা কাজ করা হয়।

তিনি আরো বলেন, সঠিক পরিমাণ ও গুণগত মানসম্পন্ন এলপিজি সরবরাহ করার জন্য তারা বদ্ধ পরিকর।

তিনি জানান, এক লিটার অকটেন ও এক লিটার এলপিজিতে একটি গাড়ি প্রায় একই দূরত্ব অতিক্রম করলেও সমপরিমান এলপিজির দাম অকটেনের তুলনায় অর্ধেক, তাই গাড়ির মালিকেরা অনেক লাভবান হবেন। সিএনজি ও এলপিজির তুলনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, একটি সিএনজি সিলিন্ডারের ওজন অনেক বেশি, অন্যদিকে এলপিজি সিলিন্ডারের ওজন অনেক কম বলে গাড়ির সাসপেন্সন নষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে না।

অন্যদিকে এলপিজি গ্যাস নিম্ন চাপে থাকে বলে তার বিস্ফোরণের কোন সম্ভাবনা নেই। এলপিজি ব্যবহারে গাড়ির ইঞ্জিনে কোন কার্বন জমে না বলে ইঞ্জিন দীর্ঘদিন ভালো থাকে। তিনি সকল গাড়ির মালিক ও ড্রাইভার ভাইদের রংপুর এলপিজি অটোগ্যাস স্টেশন এন্ড কনভার্সন সেন্টারে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

উত্তম, হাজিরহাটের মতো জায়গায় এমন একটি এলপিজি স্টেশন হওয়ায় এলাকার মানুষও উচ্ছ্বসিত। তারা মনে করেন এ স্টেশনটিতে এলাকার কিছু মানুষের কর্মসংস্থান হবে এবং এর মাধ্যমে এলাকার ব্যবসা বাণিজ্যে গতিশীলতা আসবে।

Advertisement


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত