সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

শিক্ষিকাদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করান পিটিআই সুপার

প্রশিক্ষণার্থী নারী শিক্ষকদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করান যশোর পিটিআইএর সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌস। মহিলা ইনস্ট্রাক্টরদের সাথে অশালীন আচরণ, মানসিক অত্যাচার ও দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। স্টাফদের অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন এ পিটিআই সুপার। ট্রেনিংয়ের সাপোর্ট সার্ভিসের টাকাও যশোর পিটিআইয়ের সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌস আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সুপার হাসানারুল ফেরদৌসের অনিয়ম-অত্যাচারের প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন যশোর পিটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। যশোর প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পিটিআইয়ের ইনস্ট্রাক্টর মাহবুর আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইনস্ট্রাক্টর আবু তালেব, ইনস্ট্রাক্টর আবু বকর সিদ্দিক।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সুপারিনটেনডেন্ট হিসেবে যোগদানের পর থেকে হাসানারুল ফেরদৌস পিটিআইতে নিজের অসৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য কর্মকর্তা, কর্মচারী, পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং প্রশিক্ষণার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার ও অশালীন আচরণ করেন। তিনি নারী প্রশিক্ষণার্থীদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করিয়ে নেন। মহিলা ইনস্ট্রাক্টরদের সাথে অশালীন আচরণ ও মানসিক অত্যাচার করেন। স্টাফদের সর্বদা অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন এবং মানসিক চাপে রাখেন।

লিখিত বক্তব্যে কর্মকর্তারা দাবি করেন, সুপারিনটেনডেন্টের এমন সব অস্বাভাবিক কার্যক্রমে পিটিআইয়ের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। যা, বর্তমান সরকারের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এমন কর্মকাণ্ড থেকে মুক্তি পেতে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোর পিটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত