সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০

সংস্কারের নামে সরকারি অর্থ লুটপাট

ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের পাশ্ববর্তী গৌরনদী উপজেলা ও পৌর সদরের প্রধান সড়ক গৌরনদী বাসষ্ট্যান্ড থেকে সরিকল বাজার পর্যন্ত ১৫ হাজার ৭৫০ মিটার সড়কটি গত ছয় মাসের অধিক সময় ধরে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কটি সংস্কারের জন্য এলজিইডি থেকে প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যায় করার পরেও সড়কটি খানাখন্দ ও জলাশয়ে পরিণত হয়েছে।

সূত্রমতে, জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির ওপর নির্ভরশীল উপজেলা পরিষদ, পৌর ভবন, মডেল থানা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কার্যালয়, পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জোনাল অফিস, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, ব্যাংক ভবন, শপিংমলসহ উপজেলা সদরে আসা মন্ত্রী ও সাংসদসহ সকল ধরনের ভিআইপিদের যাতায়াত। অথচ সড়কটির বেহাল দশায় পরে থাকলেও বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই। সম্পূর্ন সড়কটিতে ছোট-বড় কয়েক হাজার গর্তের সৃষ্টি হয়ে যানবাহন চলাচলে সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পরেছে। সামান্য বৃষ্টিতেই পুরো সড়কটি জলাশয়ে পরিনত হয়। সড়কে অহরহ দূর্ঘটনাসহ ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক যান চলাচল। এ জনদূর্ভোগের শেষ কোথায়? তাও বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ কিছুদিন পর পর কয়েক ভ্যান বালি আর ইটের টুকরা ফেলে গর্ত মেরামতের নামে সরকারী অর্থ লুটপাট করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল সড়ক ও জনপথ বিভাগ ১৯৯৫-১৯৯৬ অর্থবছরে ওই সড়কটি পূর্ণ নির্মানের প্রকল্প গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যায়ে কার্পেটিং সড়ক নির্মান করা হয়। সড়কটি দিয়ে গৌরনদী উপজেলা সদরের জনগুরুত্বপূর্ন সরকারী দপ্তর সমূহ, উপজেলার নলচিড়া ও সরিকল ইউনিয়ন এবং বন্দরের ব্যবসায়ীদের মালামাল পরিবহন করা হয়। ২০০৫ সালে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সড়কটি এলজিইডিকে হস্তান্তর করেন। সেই থেকে সড়কটির রক্ষনাবেক্ষনসহ যাবতীয় দায়ভার এলজিইডি’র।

গৌরনদী উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বিগত ২০১০-২০০১১ অর্থবছরে ১৩ লাখ ৭০ হাজার। ২০১১-২০১২ অর্থবছরে ১৪ লাখ। ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরে এক কোটি ১৩ লাখ ৪০ হাজার। ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে ১৪ লাখ টাকাসহ সড়কটি সংস্কারে এক কোটি ৮৩ লাখ টাকা ব্যায় করা হলেও সড়কের কোন পরিবর্তনই হয়নি।
স্থানীয়রা জানান, সড়ক উন্নয়নের জন্য প্রায় দুই কোটি টাকা সংস্কারে ব্যায় করা হলেও সড়কটি খানাখন্দ ও আর জলাশয়ই রয়ে গেছে। সড়ক সংস্কারে নামে সামান্য কিছু খোয়া ও বালু ফেলে পুরো টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত