বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

সঞ্চয়পত্রে বড় বিনিয়োগে কড়াকড়ি

সঞ্চয়পত্রে বড় বিনিয়োগে কড়াকড়ি আরোপ করেছে সরকার। চাইলেই ভবিষ্য তহবিল বা প্রভিডেন্ট ফান্ডের অর্থে সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে না। এখন থেকে প্রভিডেন্ট ফান্ডের অর্থ দিয়ে সঞ্চয়পত্র কিনতে হলে কর কমিশনারের প্রত্যয়ন লাগবে। একইভাবে কৃষিভিত্তিক ফার্মের নামে সঞ্চয়পত্র কিনতে লাগবে উপকর কমিশনারের প্রত্যয়ন।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যদিও এ নিয়ম আগে থেকেই ছিল। কিন্তু এতদিন তা সবক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করা হয়নি। গত কয়েক বছর ধরে দেখা যাচ্ছে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকার যে পরিমাণ অর্থ নেওয়ার পরিকল্পনা করছে, বছরের অর্ধেক সময়েই তার চেয়ে বেশি অর্থ বিনিয়োগ করছেন সাধারণ মানুষ। ফলে সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে সরকারের ঋণের বোঝা বড় হচ্ছে, সুদ বাবদ অর্থ পরিশোধের দায় বাড়ছে।

সদ্য সমাপ্ত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে ২৬ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য নিয়েছিল। কিন্তু গত এপ্রিল পর্যন্ত অর্থবছরের ১০ মাসেই বিক্রি হয়েছে ৪৩ হাজার ৪৭৪ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র। ওই সময়ে সামগ্রিকভাবে সঞ্চয়পত্রে সরকারের ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৮১ হাজার ২৪১ কোটি টাকা। সঞ্চয়পত্রে ব্যাপক বিনিয়োগের ফলে ব্যাংক ব্যবস্থায় আমানত সরবরাহ কমছে। এ অবস্থায় সরকার সঞ্চয়পত্রের বিনিয়োগে কড়াকড়ি আরোপ করেছে। যাতে নিয়ম-বহির্ভূতভাবে কেউ সরকারের দেওয়া এই বিশেষ সুবিধা নিতে না পারে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত