সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

সিরাজগঞ্জ বাদাম চাষের বাম্পারফলন

আবির হোসাইন শাহীন, নিজস্ব প্রতিবেদক, দেশবার্তা

পাবনা-সিরাজগঞ্জ দুগম চর এলাকায় বাদাম চাষের বাম্পারফলন হয়েছে আলোর মুখ দেখছে কৃষকরা।
১৯০ চর এলাকায় প্রায় ৩৭ হাজার একর জমিতে বাদাম চাষ হয়। ৬১ হাজার মেত্রিকটন বাদাম উৎপাদন হবে।

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার যমুনা নদীর চরে এ বছর প্রায় ১৭ হাজার ১শ’ ৪৩ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করা হয়। প্রমোধনার কর্মসুচির আওতায় ১১ হাজার ৪শত কৃষকের মধ্যে ৩শ বিঘা জমির বাদামের বিজ ও সার বিনামূল্যে বিতরণ করে কৃষি অফিস। প্রতি বছরই উপজেলার ওমারপুর,সোদিয়াচাদপুর,স্থল খাষকাউলিয়া ও খাসপুকুরিয়া ইউনিয়নের যমুনা নদীর চরে বাদামের চাষ হয়।

এছাড়া ৪’টি ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী কিছু জমিতেও বাদাম চাষ করা হয়েছে। ফলন ভাল হওয়ায় বাদাম চাষিদের মুখে হাঁসি ফুটে উঠেছে। যমুনা নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলের বেলে মাটিতে বাদামের চাষ করা হয়েছে। বাদাম চাষে চাষিদের বাড়তি খরচ নেই বললেই চলে। তাই দিনদিন যমুনার দুর্গম চরাঞ্চলে বাদাম চাষে ক্রমেই ঝুঁকছে চাষিরা। স্থানীয় বাদাম চাষিদের ভাষ্যমতে, ‘চরাঞ্চলের বেলে মাটিতে বাদামের ফলন বেশ ভালো হচ্ছে। সেঁচ ও নিরানি ছাড়াই স্বল্প খরচে বাদামের জমিতে সামান্য সার ও কীটনাশক প্রয়োগে ফলন বেশ ভালো পাওয়া যায়।

সোদিয়াচাদপুরের চাষী আব্দুল হামিদ জানান, বাদাম চাষে শুধুই লাভ। বেলে দো-আঁশ মাটিতে অধিক তাপমাত্রা, পর্যাপ্ত সূর্য্যের আলো ও মাঝারি বৃষ্টিপাত পেলে চীনাবাদামের ফলন ভালো হয়। বাজারে বাদামের চাহিদা থাকায় বেশ লাভবান হচ্ছে চাষিরা। ফলে গত কয়েক বছর ধরে বাদাম চাষিরা একে অপরের দেখাদেখিতে লাভজনক বাদাম চাষের দিকে ঝুঁকছে।’ চৌহালী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে,‘ চলতি বছর যমুনার চরে বিঘাপ্রতি ১৪ থেকে ১৫ মন বাদাম উৎপাদিত হয়। চরাঞ্চলের বেলে মাটিতে লাভজনক বাদাম চাষের পরিধি আরও বৃদ্ধি করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে বাদাম চাষিদের পরামর্শ ও উৎসাহ দেয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে, কৃষি বিভাগের পরামর্শ ও সহযোগীতা পাওয়ায় আগামীতে আরও বেশী জমিতে বাদাম চাষ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে স্থানীয় চাষিরা। এ সর্ম্পকে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ জেরিন আহমেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান যে, অত্র চরাঞ্চলের মাটি তথা আবওহাওয়া ও চিনা চাষের জন্য উপযোগী । বাঘুটিয়া ,উমারপুর,স্থল ,ঘোড়জান প্রভৃতি এলাকায় অত্র অফিস হইতে কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের ঢাকা-১,ঢাকা-৪ বাড়ি চিনা বাদাম -৮ বিতরণ করা হইয়াছে।   কৃষক ভাইয়েরা  এতে স্থায়ী জাতের  চেয়ে ও অধিক ফলন পাচ্ছে । এতে কৃষকেরা দিন দিন চিনা বাদাম চাষের দিকে ঝুকছে।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত