মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সুনামগঞ্জে তাহিরপুর উপজেলায় আওয়ামীলীগ’র প্রার্থী জট

জাকির হোসেন, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রেশ কাটতে না কাটতেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে ফেব্রুয়ারি মাসে তফশিল আর মার্চে নির্বাচন হচ্ছে নির্বাচন কমিশন এমন আবাশ দিয়েছে। এমন ঘোষনার পর নড়েচড়ে বসেছেন সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় আ.লীগের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে আগ্রহী একাধিক প্রার্থীরা। স্থানীয় নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়েছেন এবং দলীয় মনোনয়নের জন্য আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন। দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সমর্থকরা তাদের পক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ইতিমধ্যে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন পেতে।

আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন পেতে ইতিমধ্যে যাদের নাম শুনা যাচ্ছে এবং যারা এখন বর্তমানে মাঠে কাজ করছেন তারা হলেন,সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ’র কৃষি বিষয়ক সম্পাদক করুনা সিন্ধু চেীধুরী বাবুল, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও তাহিরপুর উপজেলা আ,লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খান,তাাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাধক অমল কর,উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগ সাবেক আহবায়ক অনুপম রায়, জেলা যুবলীগ যুগ্ম আহবায়ক ও সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক খন্দকার মঞ্জুর আহমদ, জেলা আ.লীগ সদস্য শামীম আখঞ্জি।

অন্যদিকে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান জেলা বিএনপি’র সাংগাঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুল অনেকটা নীরবেই আছেন। দলীয় মনোনয়ন পেতে এবং ভোটারদের মন জয় করার জন্য ইতিমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে কাজ করছেন। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে,হাঠ বাজারে ভোটরদের সাথে কথা বলছেন,উঠন বৈঠক করছেন।
তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আবুল হুসেন খাঁন। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে যদি দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে তৃনমূলে কারো মনে কোন দ্বিধাদ্বন্ধ থাকবে না এবং নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত হবে বলে মনে করছেন তার নিজস্ব গন্ডির লোকজন। আবুল হোসেন খাঁন ওয়ার্ড থেকে শুরু করে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সভাপতি দায়িত্ব পালন করেছেন। আবুল হুসেন খানঁ দীর্ঘদিন ধরেই উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।
আবুল হোসেন খাঁন বলেন, আমি এলাকায় সব সময় গরিব, দুঃখী ও অসহায় মানুষের সঙ্গে ছিলাম। কাজ করেছি দলের হয়ে, দলের হয়ে আজীবন আমি মানুষের সেবা করতে চাই। তাই আসছে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ হতে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হতে চান জেলা আওয়ামীলীগের কুৃষি বিষয়ক সম্পাদক করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল। নৌকা পেতে জোড় তৎপরতাসহ প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। তার পক্ষের নেতাকর্মীরা জানান, করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুলকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে যদি দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে তৃনমূলে কারো মধ্যে কোন দ্বিধাদ্বন্ধ থাকবে না বরং তিনি প্রার্থী হলে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত হবে বলে আলোচিত হচ্ছে।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী করুনা সিন্ধু চৌধুরী বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও সাধারন জনগনের জন্য জনপ্রতিনিধি না হয়েও সেবা করে যাচ্ছি। আমার রাজনৈতিক, সামাজিক ও বিভিন্ন কর্মকান্ড সংগঠন অবগত আছে। হাওর আর পাহাড়ের দেশে তাহিরপুর উপজেলাবাসী কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করতে চাই। আশাকরি সংগঠন আমাকে মূল্যায়ন করবে।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য আরেক প্রার্থী জেলা যুবলীগ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক,সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক খন্দকার মঞ্জুর আহমদ। ইতিমধ্যেইর তার পক্ষে নেতাকর্মীরা মাঠে কাজ করছেন। ভোটারদের সাথে তিনি নিজেও সবসময় যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।
তরুন এই প্রার্থীকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের হাট-বাজার,চায়ের দোকান,পাড়া-মহল্লায়।

জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক খন্দকার মঞ্জুর আহমেদ জানান,তৃনমুল নেতাকর্মীদের ভালবাসা নিয়ে উপজেলা নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে আমি মাঠে কাজ করছি। দল যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় তাহলে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত।

জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে আমার জীবনের বেশিরভাগ সময় ব্যায় করে এসেছি। কোনো চাওয়া পাওয়া নেই। আজীবন সাধারণ মানুষের সেবা করার লক্ষ্যে আসছে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন চাইব। দলের দুঃসময়েও আমি সঙ্গে ছিলাম। আশা করছি দল আমাকে সাধারণ মানুষের সেবা করার সুযোগ করে দেবেন।

উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগ সাবেক আহবায়ক অনুপম রায় তিনিও দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ করছেন। এছাড়াও এলাকায় ভোটারদের সাথে উঠান বৈঠকসহ গ্রামের হাট বাজারে গনসংযোগ করে যাচ্ছেন। অনুপম রায় বলেন,তার উপজেলা হাওর অধ্যুসিত একটি উপজেলায়। এই উপজেলার বেশিরভাগ মানুুষ কৃষি কাজ করেই জিবীকা নির্বাহ করে। প্রায় প্রতিবছর অকাল বন্যায় ফসল তলিয়ে নিয়ে যায়। এসব মাথায় রেখে যেভাবে স্থায়ীভাবে বাঁধ দিয়ে ফসলরক্ষা করা যায় সেই ব্যবস্থা করবেন যদি নির্বাচিত হতে পারেন।

অন্যদিকে জেলা বিএনপি’র সাংগাঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল অনেকটা নীরবেই বসে আছেন। তিনি বলেন দলীয় সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। তবে জনপ্রতিনিধি হিসেবে তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে পুরো উপজেলায়। ২০১৭ সালের অকালবন্যায় কামরুজ্জামান কামরুলের ভুমিক ছিলো বেশ। তিনি বলেন, দলীয়ভাবে নির্বাচনে না আসলেও এলাকার জনগন চায় আমি নির্বাচনে আসি।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত