বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

সুনামগঞ্জে বন্যায় দিনমজুর পরিবারগুলোতে দুর্ভোগ

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলের কারণে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামের বন্যা পরিস্থিত ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। এতে করে অর্ধলক্ষাধিক মানুষ পড়েছেন দুর্ভোগে। বন্যা আর দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে হাওরপাড়ের দিনমজুর পরিবারের লোকজনের মাঝে অর্থাভাব দেখা দিয়েছে।

বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে অবস্থা আরো ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। সাত দিন ধরে জেলা শহর সাথে উপজেলার সড়কসহ অভ্যন্তরীণ সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার ৭২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকেছে। ২০টি বেশি হাটবাজার পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে।

তাহিরপুর উপজেলা প্রশাসন জানিয়েছে, তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়ক পুরোপুরি বন্ধ হয়ে পড়েছে। তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়ক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, আনোয়ারপুর-ফতেহপুর, বাদাঘাট-সোহালা সড়কসহ মেঘালয় পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলের পানির চাপে উপজেলার অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সড়কে ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। হাওর পাড়ের বাড়ি ঘরে ঢেউয়ের আঘাতে বিভিন্ন গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

হাওরপাড়ের লোকজনের অন্যতম পেশা মাছ ধরা এবং বালু উত্তোলন বন্ধ থাকায় শ্রমজীবী লোকজন পরিবার নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। বন্যার পানিতে এ পর্যন্ত উপজেলার ২৪ শতাধিক ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপজেলার ৬০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করেছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্থরের ১২টি প্রতিষ্ঠানের ভেতর পানি প্রবেশ করেছে। এ সকল বিদ্যালয়ের পাঠদান বন্ধ রয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে পানি প্রবেশ করেছে।

পানিবন্দি শতাধিক গ্রামের মধ্যে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলো-বালিজুরী, বড়খলা, আনোয়ারপুর, সোহালা, মাহতাবপুর, পিরিজপুর, দক্ষিণকূল, চিকসা, চানপুর, মাহরাম, নোয়াহাট, পাতারগাঁও, ধরুন্দ, ইউনুছপুর, লক্ষ্মীপুর, চিকসা, টাংগুয়ার হাওর সংলগ্ন কয়েকটি গ্রামসহ ৫০টি গ্রাম।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত