শনিবার, ৩০ মে ২০২০

হাওরে কৃষকের সাথে বোরো ধান কাটলেন জেলা প্রশাসক

“কাটলে হাওরের ধান, মিলবে সরকারি ত্রান” ও “নিরাপদে কাটবো ধান, দেশে দিব খাদ্য যোগান” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে নতুন বছরের প্রথম দিনে হাওরে কৃষকদের সাথে বোরো ধান কেটেছেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ এবং অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন হাওরে এ বছর বিপুল পরিমানে বোরো ধান উৎপাদিত হয়েছে। এই বোরো ধান শুধু সুনামগঞ্জের নয় বরং সারাদেশের খাদ্য শস্যের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ পূরনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে।

চলমান করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে দেশব্যাপী নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা রয়েছে। তদুপরি সুনামগঞ্জসহ দেশব্যাপী হাওরের ধান আহরণের ক্ষেত্রে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দৃষ্টি রয়েছে।

করোনা ভারইরাসজনিত কারনে নিরাপদ দূরত্বে থেকে পহেলা বৈশাখ ১৪২৭ পালিত হলেও সুনামগঞ্জের হাওরসমূহে নিরাপত্তা বজায় রেখে ধান কাটার কাজ পুরোদমে চালু হয়েছে।

গতকাল সকালে কৃষকদের মাঝে সচেতনা তৈরি এবং উৎসাহ ও উদ্দীপনা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক সুনামগঞ্জ জনাব মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ জেলার সুনামগঞ্জ সদর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও দিরাই উপজেলার বিভিন্ন হাওরে গিয়ে কৃষকদের সাথে ধান কাটায় অংশগ্রহণ করেন। এ সময়ে তার সাথে ছিলেন, উপ-পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, সুনামগঞ্জ, মোহাম্মদ সফর উদ্দিন, নির্বাহী প্রকৌশলী, পানি উন্নয়ন বোর্ড, পওর-১, জনাব মোঃ সাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ সুহেল মাহমুদ, সহকারী কমিশনার জনাব হাসান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, এবং জনাব জহিরুল আলম। এছাড়া সুনামগঞ্জের সকল উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণ নিজ নিজ অধিক্ষেত্রের কৃষকদের মাঝে উপস্থিত হয়ে ধানকাটা কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

এবারের উদ্যোগের মুল প্রতিপাদ্য “কাটলে হাওরের ধান, মিলবে সরকারি ত্রান” ও ” নিরাপদে কাটবো ধান, দেশে দিব খাদ্য যোগান”। কৃষকদের মাঝে করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত সচেতনতা সৃষ্টি ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য অনুরোধ করা হয়। এ সময়ে তাদেরকে একটি করে হাত ধোয়ার সাবান এবং এক প্যাকেট করে পুষ্টিকর বিস্কিট প্রদান করা হয়।

কৃষকগণ জানান এ বছর ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে এবং তারা ন্যায্য মূল্যে ধান বিক্রয়ের বিষয়ে আশা ব্যক্ত করেন। উল্লেখ্য কৃষি শ্রমিকদের প্রনোদনা হিসেবে জেলা প্রশাসন, সুনামগঞ্জের পক্ষ হতে ১০,০০০ (দশ হাজার) পিচ সাবান ও ১০,০০০ (দশ হাজার) প্যাকেট বিস্কুট বিতরণ করা হবে। এছাড়া কৃষকদের মধ্যে প্রয়োজন মাফিক মাস্কও বিতরণ করা হচ্ছে।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত