মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

Advertisement

হার্টে ছিদ্র ওসামার : প্রয়োজন ৩ লাখ টাকা

Advertisement

বাবা মা খুব আদরের ওসামা। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি বাবা-মা কোলে আনন্দের বন্যা নিয়ে আসে ওসামা। তার পুরো নাম ওসামা মিয়া। জন্মের সময় তার শরীরে কোনো রোগ ধরা না পড়লেও বড় হওয়ার সাথে সাথে ধরা পরে একটি রোগের। আর দিন যত বাড়ছে তার এই রোগটাও দিন দিন বৃদ্ধি হচ্ছে। মাত্র ৩ বছর বয়সেই লড়াই করছে হার্টের ছিদ্র নিয়ে।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া এলাকার বাসিন্দা রহিম উদ্দিনের ছোট ছেলে ওসামা। একসময় একটি হোটেলে বাবুর্চির কাজ করলেও এখন আর আগের মতো কাজ করতে পারেন না। তিনিও অসুস্থ ডান হাতে ব্যাথা অনুভব করেন সবসময়। কিন্তু আদরের ছেলের এতোবড় রোগ শুনে ঘরে বসে থাকতে পারেন না। তাই তিনি হয়ে যান চা বিক্রেতা। সুনামগঞ্জ শহরের আলফাত উদ্দিন স্কয়ার এলাকায় অনেকটা খোলা আকাশের নিচেই চা বিক্রি করেন তিনি। যতবেশি চা বিক্রি করবেন ছেলের জন্য ততো বেশি টাকা জোগাড় করতে পারবেন বলে ধারনা উনার।

কয়েকজন মানুষের কাছ থেকে টাকা ধার করে ছেলেকে ঢাকায় নিয়ে ডাক্তার দেখালে। শিশু ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজিস্ট বিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নুরুন্নাহার ফাতেমাকে দেখালে তিনি তার এই হার্টের চিদ্র ব্যাপারটি নিশ্চিত করেন এবং তার এই রোগের জন্য প্রয়োজন একটি অপারেশনের। যার জন্য প্রয়োজন ৩ লক্ষ টাকা।

ওসামা বাবা রহিম উদ্দিন বলেন, আমার যা আছিল প্রথমে তার চিকিৎসায় শেষ হয়ে গেছে। এখন মানুষের দোয়ারে দোয়ারে যাই সাহায্য লাগি কিন্তু সবই কয় দিবো কিন্তু পরে কেউ দেয় না। আমি সামান্য চা বিক্রি করি। চাই বেছিয়া যা পাই তা দিয়া সংসার চলে আর বাকি টাকা আমার পোয়ার চিকিৎসার লাগি রাখি দেই। ডাক্তার আপা বলেছেন যদি সঠিক সময়ে তার চিকিৎসা না হয় তাইলে ছিদ্র দিন দিন বড় হবে এবং সে মারাও যেতে পারে। তাই নিজের উপরই শেষ ভরসা। চা যতো বেশি বিক্রি করমু ছেলের চিকিৎসার টাকাও তাড়াতাড়ি জোগাড় ওইবো।

ওসামা মা খায়রুন নেছা বলেন, আমার ঘরের দুই ছেলে। বড় ছেলের বয়স ৬ বছর। আর তার বয়স মাত্র ৩ বছর। আমার ছোট ছেলেটা বুঝতেই শিখলো না এরই মধ্যে এতো বড় রোগ দিছোইন আল্লাহ। তার বাবা রোজই মানুষের কাছে যাইরা। নিজেও অতিরিক্ত কাজ কররা ছেলে লাগি। ডাক্তার কইছে যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব অপারেশন করার লায়। এখন আমরার এই সামর্থ্য নাই। তিন লক্ষ টাকা আমরার লাগি অনেক টাকা। তাই সমাজের বিত্তবানদের কাছে অনুরোধ করবো আপনারা যদি সহযোগিতা করেন তাহলে সে বাচতে পারবে।

তাকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা :

ডাচ বাংলা ব্যাংক সুনামগঞ্জ শাখা, আব্দুর রহিম একাউন্ট নং : ২০৪১৫১০১৮৬৫৪৯

বিকাশ ০১৭৬৫৬৬৫২৭৩

Advertisement


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত