রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

হাসান হামিদের কবিতাগুচ্ছ

দূরত্ব

তুমি কাছে থাকলে কী কী হতো ভাবি;
যদি পাশে থাকতে বুকে টনটনে ব্যথাটা থাকতো না,
নিজেকে মাঝেমধ্যেই রক্তশূণ্য মনে হতো না,
হয়তো ভবিষ্যতে যেতে হতো না আর নার্সিংহোমে।

তুমি কাছে থাকলে আমার সৌন্দর্য পরিচর্যা হতো সেলুনে,
পুষ্পের প্রতি প্রসারিত থাকতো সুকোমল জীবনযাপন,
ছেড়ে যেতো নাছোড়বান্দা জ্বর;
এবং প্রেমময় হতো সময়ের সবকটা সিঁড়ি।

তুমি কাছে থাকলেই কেবল শ্বাস নেওয়ার নাম জীবন হয়।

 

সীমিত বিনাশ

জ্যামিতিবক্সে যেমন যত্নে লুকিয়ে রাখে বালিকা
প্রেমিকের চিঠি, সব সমর্পণ থাকে নির্বেদে;
আমিও তেমনি লুকিয়ে রেখেছি আমার স্বপ্ন
নিদ্রিত করোটির সবখানে, গোপনে, যত্নে!

অবুঝ বালিকাটি প্রথম সঙ্গমে যেমন গন্ধ শুঁকে
তরতরি কাঁপে অজানা আশংখা আর সীমাহীন সুখে-
স্বপ্ন ভাঙার ডরে, এই আকালে আমিও দিশেহারা
তেমনি কেঁদে উঠি, কেঁপে উঠি মাঝরাতে; একা।

 

পরবাস

যেখানেই থাকি, মনে হয় পরবাস;
বিবর্ণতা লেগে থাকে প্রার্থিত গোলাপের দেহে।

আজকাল অচেনা লাগে নিজের বিছানা-বালিশ,
যেনো পলেস্তারা খসে গেছে জীবনের,
ধ্বসে গেছে নিখুঁত নির্মাণ!
যেখানেই যাই, মনে হয় বহুদূর;

চোখদুটোকে মরে যাওয়া ভ্রমর বলে ভ্রম হয়,
বিরহের ভাদ্রকে বিরানের বোশেখের মতো লাগে;
যা কিছু করি, সব খালি ভুলে ভুলে যাই!
আমার বাতেনি চোখে এড়ায় না কিছুই;
সব দেখি ফেলি, সব যেনো ধরা পড়ে যায়;
বসবাসের সবটা জমিনকে পরবাস মনে হয়।


© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত