সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২

হাসান হামিদ-এর কবিতা : নিয়তি

কিছুটা সময়, মাত্র কয়েক সেকেণ্ড –
কতোটা আর দেখা যায় মনচোখে, তবুও দেখেছি;
তুমি প্রজাপতির মতোই ছিলে কারুকাজ শোভিত পাখায় ।
তোমার আঙ্গুল, দেখেছি লুকিয়ে তোমার নখাগ্র,
চাপা হাসি, চোখের কোনায় ভবঘুরে একাগ্রতা আর
তোমার নাকটির গড়ন বড় অদ্ভুত, আমি তাও দেখেছি;
দেখেছি প্রেমের খরতাপে কীভাবে শুকাও নিপুন বেদনাসমূহ।

তোমার হাতের তালু লক্ষ্য করেছিলাম –
তুমি যখন জ্যামিতি আঁকছিলে; ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ আর বৃত্তের বাইরে
আমার অবস্থান, আমি তোমার কনুইয়ের দিকে তাকিয়ে তখন ।
আমাকে দেখলে তুমি লাফিয়ে উঠো না যদিও–
শুধু বেদনাগুলি বাজিয়ে দেখাও কেমন বিলাপের গ্রহ তুমি ।
আর পাটিশাপটা পিঠার মতোন ভাঁজের ভিতরে জমা রাখো
কতিপয় দীপ্ত অন্ধকার, উৎসবমুখর কারুকাজ অথবা সংঘবদ্ধ ধূর্ততা!
তারপরও তোমার চোখে একটা আসামান্য দীপ্তি খেলে যায়,
আমাকে দেখা মাত্র তুমি, শান্ত-শীতল তুমি কিছুটা অশান্ত হও-
ভরদুপুরে ঠায় দাঁড়ানো দীঘির জলে ঢিল ছুঁড়লে
যেমন নেচে উঠে জল; জন্ম দেয় ঢেউ নীরবতা ভেঙ্গে–
অচেনাও চেনা হয়, আমি তবু অচেনা,
একবিংশ শতাব্দীতেও আমাকে একদিন
বানান করে পড়তে পারলে না, হায়রে নিয়তি !


© 2022 - Deshbarta Magazine. All Rights Reserved.