সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২

হাসান হামিদ-এর কবিতা : রোদ ও জোছনার গল্প

কীভাবে যেনো রোদ একদিন জোছনার প্রেমে পড়ে যায়।
গল্প শুনে অন্যের কাছে যেমনটি পড়তো
প্রাচীন পুরুষ, সাক্ষী রেখে গ্রহ উপগ্রহ,
নারীর উরুতে শুয়ে প্রতীক্ষা করতো নির্জনতার;
তেমনি রোদ চাইলো ভালোবেসে অতঃপর
কোলাহলকে অস্বীকার করে, যাবতীয় হুলুস্থূলকে ভুলে
একদিন ধাবিত হবে নিরবতার দিকে,
একদিন জন্মের মতো স্নিগ্ধ হবে।
রোদ তারপর প্রজাপতি পাঠিয়ে
জোনাকির কাছে খবর পাঠালো
জোছনাকে, একদিন দেখা হবে; হবেই।
স্বপ্নে, মনে মনে, প্রায়শই কথা হয় দুজনের;
রোদ হেসে বলে, আমি দিনের বৈশিষ্ট্য,
কোলাহলপূর্ণ বিশেষণের শরীর, আমি চিতার ঘ্রাণ।
জোছনা কেঁদে বলে, আমি সৌন্দর্য রাতের,
সাক্ষী নির্জনতার, স্নিগ্ধতায় উদাসী আমি;
তুমি ধাবমান কোলাহলের দিকে আর
আমি নিরবতার দিকে ছুটে চলা কীট।
আদৌ আমাদের কি দেখা হবে কখনো? সম্ভব?
রোদ বলে, হবে! একদিন হবেই তো! না কেন?
ভালোবাসলে নাকি সূর্য গলে নদী হয়?
অথচ রোদ আর জোছনার দেখা হয়নি আজ অবধি!


© 2022 - Deshbarta Magazine. All Rights Reserved.