বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১

হেফাজতের ৫০ নেতার দুর্নীতি অনুসন্ধানে দুদক

ধর্মভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের শীর্ষ ৫০ নেতা এবং তাদের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট ইসলামী কার্যক্রম পরিচালনায় যুক্ত ১৯টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদক পরিচালক আকতার হোসেন আজাদের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের বিশেষ টিম গঠন করে গত ১৭ মে এ-সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে।

অনুসন্ধান টিমের অন্য সদস্যরা হলেন উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ নুরুল হুদা, সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী, মো. সাইদুজ্জামান ও উপসহকারী পরিচালক সহিদুর রহমান।

ওই আদেশে বলা হয়েছে, হেফাজতে ইসলামের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সংগঠনের তহবিল, বিভিন্ন মাদ্রাসা, এতিমখানা, ইসলামী প্রতিষ্ঠানের অর্থ এবং ধর্মীয় কাজে বিদেশি সহায়তার অর্থ আত্মসাৎ, দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল সম্পদ অর্জন, মানি লন্ডারিং এবং অবৈধ অর্থ লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে ওইসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের দুদক কমিশনার জহুরুল হক বলেন, ‘আমরা একটা কমিটি করে দিয়েছি। কমিটি অনুসন্ধান শুরু করছে। অনুসন্ধানে যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ অভিযোগের বিষয়ে হেফাজতের কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অনুসন্ধানের সময় যা যা করা দরকার, তা করবে টিমের সদস্যরা। যাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার, তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। যাকে প্রয়োজন নেই, তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে না।’

দুদক কমিশনার বলেন, ‘আইন অনুযায়ী ১২০ দিনের মধ্যে অনুসন্ধান শেষ করতে হবে। এই সময়ের মধ্যে অনুসন্ধান শেষ না হলে আরও সাত দিন সময় বাড়িয়ে নেওয়া যাবে। দুদক কাউকে ছাড় (কনসিডার) দেবে না। দুদক আইন অনুযায়ী কাজ করবে। আইনে যা যা আছে, তার ব্যত্যয় ঘটবে না।’


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত