বুধবার, ১২ মে ২০২১

১৪টি প্রতিষ্ঠানকে ‘কালো তালিকাভুক্ত’ করেছে এনসিটিবি

কেউ কেউ নিম্নমানের কাগজ দিয়ে বই ছাপিয়েছেন। কারও কারও মুদ্রণ ও বাঁধাই খারাপ হয়েছে। কেউবা নির্ধারিত সময়ে বই ছাপিয়ে দিতে পারেননি। চলতি শিক্ষাবর্ষের বিনা মূল্যের পাঠ্যবই ছাপা ও বিতরণে এ রকম নানা অনিয়মের জন্য ১৪টি মুদ্রণকারী প্রতিষ্ঠানকে ‘কালো তালিকাভুক্ত’ করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)।

এনসিটিবির চেয়ারম্যান নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, দরপত্র অনুযায়ী কাজ হয়নি বা ব্যত্যয় ঘটেছে, এমন কিছুসংখ্যক প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। এদের মধ্যে কেউ হয়তো এক বছরের মধ্যে এনসিটিবির কোনো কাজ করতে পারবে না, কেউ দুই বছর বা সারা জীবনের জন্য এনসিটিবির কাজ করতে পারবে না। কাউকে জরিমানা করা হবে। সতর্কও করা হবে।

এনসিটিবির একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, সম্প্রতি এনসিটিবির বোর্ড সভায় এসব মুদ্রণকারী প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে অভিযোগ উঠেছে, মোট ১৮টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলেও ৪টি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়নি। তাদের শুধু সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

চলতি শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের মোট ৪ কোটি ১৬ লাখ ৫৫ হাজার ২২৬ জন শিক্ষার্থীর জন্য বিনা মূল্যের বই ছাপা হয়েছে ৩৪ কোটি ৩৬ লাখ ৬২ হাজার ৩৯৪টি। এবার প্রাক্কলিত দরের চেয়ে অস্বাভাবিক কম দামে কাজ নিয়েছিলেন মুদ্রণকারীরা।


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত