মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

Advertisement

৩ দিন নিখোঁজের পর গৃহবধুর লাশ উদ্ধার

Advertisement

সিয়াম হোসেন, রংপুর প্রতিনিধি

রংপুর নগরীর বাবু পাড়া এলাকায় তিন দিন নিখোঁজ থাকার পর ডোবা থেকে দুই সন্তানের জননী রেশমা বেগম (২৬) এর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মৃতের গলায় গামছা পেঁচানো ছিল এবং লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ জানায়
মৃতের স্বামী আব্দুল খালেক জুম্মান ও বড় ভাই বান্ঠাসহ তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। মৃতের চোখে ও গলায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নিখোঁজের কয়েকদিন আগে ওই মহিলার ভাসুর ও তার পরিবার কর্তৃক মারডাং এর শিকার হয় রেশমি। এলাকাবাসী জানান উক্ত ঘটনায় ওই মহিলা থানায় অভিযোগ করতে গিয়েছিল, কিন্তু অভিযোগ করেছিলেন কিনা তা জানা যায়নি।

রসিক ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হারুনর রশিদ জানান মৃত রেশমি দুই সন্তানের জননী। রেশমির বাবার বাড়ি দিনাজপুরে।
বিগত ৫/৬ বছর আগে রংপুর নগরীর বাবুপাড়া এলাকার মৃত আঃ কাবেল মিয়ার পুত্র মোঃ আঃ খালেক জুম্মনের সাথে বিয়ে হয়। সংসার করাকালীন দুই সন্তানের জননী হন রেশমি। বড় সন্তানের বয়স সাড়ে তিন বছর,আর ছোট সন্তানের বয়স প্রায় দেড় বছর। কাউন্সিলর জানান রেশমি নিখোঁজের পর তার স্বামী জুম্মন কোতোয়ালি থানায় একটি জিডি করেছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুর রশিদ বলেন, আমি নিজেই ঘটনাস্থলে এসেছি লাশের সুরত হাল দেখে প্রাথমিক ধারণা হিসেবে এটি হত্যাকাণ্ড বলেই মনে হচ্ছে, তবে আমরা এটাকে আরো নিবিড় ভাবে তদন্ত করে দেখছি, এছাড়া পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসলে বাকিটা বোঝা যাবে।

এলাকাবাসী আরো জানায় যে ডোবায় রেশমির মরদেহ পাওয়া গেছে সেখানে কোন মানুষ মারা যাওয়ার মত গভীরতা নেই। ওটা একটা নর্দমার মত ময়লা ফেলা ডোবা। নাম না প্রকাশের শর্তে প্রতিবেশী জানান, নিখোঁজের কয়েকদিন আগে ওই মহিলার ভাসুর ও তার পরিবারের সাথে ঝগড়াঝাটি হয়েছিল, একপর্যায়ে রেশমিকে শারীরিক নির্যাতন করে।

Advertisement


©  দেশবার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত